বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো মানবদেহে কিডনিসহ যেকোনো অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজনের আগে ও পরে প্রয়োজনীয় রক্ত পরীক্ষার সুবিধা চালু হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ)। গতকাল রোববার পরীক্ষাগারটির উদ্বোধন করা হয়।
বিএসএমএমইউ বলছে, নতুন এ পরীক্ষাটির নাম প্যানেল রিঅ্যাকটিভ অ্যান্টিবডি (পিআরএ)। এটি চালু হওয়ার ফলে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজনের জন্য প্রয়োজনীয় সব পরীক্ষা এখন দেশেই করা সম্ভব হবে। এই পরীক্ষা এখন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের এইচএলএ টিস্যু টাইপিং ল্যাবরেটরিতে করা যাবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বি-ব্লকের ৩ তলায় ২০১ ও ২০২ নম্বর কক্ষে এই পিআরএ পরীক্ষা হবে।
ভাইরোলজি বিভাগের প্রধান শাহিনা তাবাসসুম প্রথম আলোকে বলেন, মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ যখন সংযোজন করা হয়, দেহ অনেক সময় তা গ্রহণ করতে চায় না। এতে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজনের পরও পুরোপুরি সুস্থ হওয়া নিয়ে শঙ্কা থেকে যায়। এ রকম সমস্যায় যেন পড়তে না-হয় সে জন্য পিআরএ পরীক্ষা করে দেখা হয়। সংযোজনের পরও এ পরীক্ষাটি করতে হয়। এ ধরনের পরীক্ষার সুযোগ বাংলাদেশে ছিল না। সামর্থ্য অনুযায়ী কেউ রক্তের নমুনা ভারতে আবার কেউ থাইল্যান্ড বা সিঙ্গাপুরে পাঠাত। এতে অর্থ ও সময়—দুই-ই অপচয় হতো। এখন থেকে আর এ সমস্যা থাকছে না।
শাহিনা তাবাসসুম আরও জানান, ভারতে এই পরীক্ষায় খরচ গড়ে ১৬ হাজার রুপি থেকে ২৪ হাজার রুপি পর্যন্ত। কিন্তু বিএসএমএমইউতে খরচ পড়বে আট হাজার টাকা।
বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ জানায়, রোগীদের প্রয়োজনের কথা বিবেচনা করে বিএসএমএমইউ ২০০৭ সালে ভাইরোলজি বিভাগে এইচএলএ টিস্যু টাইপিং ল্যাবরেটরি চালুর অনুমতি দেয়। এই পরীক্ষাগারে টিস্যু টাইপিং এইচএলএ-এ এবং বি টাইপিং, ডিআর টাইপিং, ক্রস ম্যাচিং, অটো ক্রস ম্যাচিং করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0