সৌদিপ্রবাসী রজব আলীর বৃদ্ধ মা-বাবা থাকেন রাজধানীর শনির আখড়ায়। ঈদে ছুটি কাটাতে দেশে ফিরবেন। তবে একেবারে ঈদের আগ মুহূর্তে। ফিরে কোরবানির গরু কেনার ঝামেলায় আর যেতে চান না। এদিকে সৌদি আরবে বসে শুনতে পাচ্ছেন এবার বাংলাদেশে কোরবানির গরুর সংকট হতে পারে। তাই ঝুঁকিমুক্ত থাকতে অনলাইনে গরুর বুকিং দিয়ে ফেলেছেন।
গুলশানের বাসিন্দা আদনান করিম ছোটবেলা থেকেই বড়দের সঙ্গে হাটে গিয়ে কোরবানির গরু কিনেছেন। পেশায় একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থার কর্মকর্তা আদনান ব্যস্ততার কারণে এখন আর হাটে না গিয়ে বিক্রয় ডটকমের মাধ্যমে গরু কিনে ফেলেছেন। বলেছেন, ‘কোরবানির গরু কেনা আসলেই ঝামেলার ব্যাপার। কয়েক হাজার টাকা এদিক-ওদিক হলেও সমস্যা নেই। মূল বিষয় হলো ঝামেলা ছাড়া গরুটি বাসায় পাওয়া যাচ্ছে।’
ঈদের আগে পরিবারের কয়েকজন মিলে হাটগুলো ঘুরে পছন্দের গরু-ছাগল কেনার চল বহুদিনের। ২০১২ সাল থেকে এর পাশাপাশি বাড়ছে অনলাইন গরু-ছাগলের হাট। বিক্রয় ডটকম, কেইমু ডটকম, এখানেই ডটকমের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো কোরবানির গরু-ছাগলের হাট বসিয়েছে।
বেঙ্গল মিটও এবারই প্রথম কোরবানির প্রাণী বাছাই, কেনা ও প্রক্রিয়াজাতকরণ সেবা দিচ্ছে। প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে গিয়ে গ্রাহকেরা তাঁদের পছন্দমতো প্রাণী পছন্দ করতে পারবেন। প্রতিষ্ঠানটির সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. মাসুমুল হক বলেন, বেঙ্গল মিট তাদের নিজস্ব খামার ও বিভিন্ন জেলা থেকে বাছাই করে গরু সংগ্রহ করে ছবি ও বিবরণ এই লিংকে দিয়েছে। গ্রাহকেরা নিজেরাও গরু সরবরাহ করতে পারবেন, সে ক্ষেত্রে প্রক্রিয়াজাতকরণ বাবদ ১৭ হাজার টাকা দিতে হবে। তিনি বলেন, প্রথমবার তারা স্বল্পসংখ্যক প্রাণীর বিবরণ দিচ্ছে অনলাইনে। তবে কোরবানির মাংস গ্রাহকেরা ঈদের তিন দিন পর পাবেন।
বিক্রয় ডট কমের বিপণন পরিচালক মিশা আলী প্রথম আলোকে বলেন, গত কয়েকবার তাঁরা কেবল অনলাইনে গরুর বিজ্ঞাপন দিতেন। ক্রেতা-বিক্রেতারা নিজেদের মাঝে আলোচনার মাধ্যমে কেনাবেচা করতেন। এবার তাঁদের অনলাইনে কোরবানির গরু-ছাগল কেনা ও বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার সুবিধা পাওয়া যাবে। ৫ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তাঁদের সাইটে কেনার ফরমাশ দেওয়া যাবে। এ জন্য সেবা পেতে তিন হাজার টাকা অগ্রিম দিতে হবে। পৌঁছে দেওয়ার সময় গ্রাহককে প্রাণীর সম্পূর্ণ দাম বিক্রেতাকে দিতে হবে। কোনো কারণে অর্ডার বাতিল করলে গ্রাহককে প্রাণী ফেরত বাবদ তিন হাজার টাকা দিতে হবে।
কেইমু ডটকমের রাশেদুল হক বলেন, তাঁদের অনলাইনে বিভিন্ন দামের গরু আছে। গ্রাহকেরা সেখান থেকে পছন্দের গরু কিনতে যোগাযোগ করতে পারবেন। মূলত বিক্রেতা নিজেই বিজ্ঞাপন দেন। মাশুলের বিনিময়ে বিজ্ঞাপন নেওয়া হয়।
এখানেই ডটকমের বিপণন পরিচালক সাহেদ রেদওয়ান বলেন, বিক্রির জন্য গত বছর ২০ হাজারের বেশি প্রাণীর বিবরণ আপলোড করা হয়েছিল। তিনি বলেন, আপলোড করার পর তাঁদের প্রতিষ্ঠান থেকে বিজ্ঞাপনদাতার সঙ্গে যোগাযোগ করে বিজ্ঞাপনের সত্যতা ও এর বিস্তারিত সম্পর্কে নিশ্চিত হন। তারপরই এই বিজ্ঞাপন প্রকাশ করা হয়। তিনি বলেন, এবার তাঁরা মূলত মার্কেটপ্লেস হিসেবে থাকছেন, আলাদা সেবা দিচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0