নির্বাচন কমিশন (ইসি) ভোটারদের জন্য অনলাইনে সেবা চালু করেছে। এতে ঘরে বসেই অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়া, তথ্য সংশোধন, স্বাক্ষর পরিবর্তন ও হারানো জাতীয় পরিচয়পত্র পেতে আবেদন করা যাবে।
গতকাল বুধবার নির্বাচন কমিশনের সম্মেলন কক্ষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিব উদ্দীন আহমদ এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। তবে এই সেবার শুরুতেই বিপত্তি দেখা দেয়। অনুষ্ঠানে ইসির ওয়েবসাইটের  www.ecs.org.bd  ‘এনআইডি অনলাইন সার্ভিসেস’ অপশনে জনৈক জুবায়ের ইবনে সালেহর তথ্য সংশোধনের জন্য এনআইডি (জাতীয় পরিচয়পত্র) নম্বর ও জন্মতারিখ লেখা হয়। এর জবাবে ওই ব্যক্তির মোবাইল ফোনে ফিরতি এসএমএস-এর মাধ্যমে একটি পাসওয়ার্ড আসার কথা। কিন্তু তা আসেনি। শেষ পর্যন্ত পরীক্ষামূলক এ কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। এমন বিপত্তিতে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন কর্মকর্তারা। সিইসি ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, ‘আগারগাঁওয়ে এনআইডি কার্যালয়ের পাশে আগুন লাগায় সার্ভার কাজ করছে না।’ গতকাল দুপুরের পর ইসির ওয়েবসাইটটির প্রদর্শনও বন্ধ হয়ে যায়। তবে পুরোনো ওয়েবসাইটটি  www.ecs.gov.bd  প্রদর্শিত হয়। এর এনআইডি অনলাইন সার্ভিসেস অপশনে ক্লিক করার পর নতুন একটি পাতা উন্মুক্ত হয়। এতে লেখা আছে, এই ওয়েবসাইটে ঢুকলে হ্যাকার আপনার যাবতীয় তথ্য, পাসওয়ার্ড ও ক্রেডিটকার্ড চুরি করতে পারে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সিইসি বলেন, বুধবার (গতকাল) থেকে অনলাইন সেবা শুরু হচ্ছে। এর মাধ্যমে মানুষ সহজে সেবা পাবে।
ইসি সচিবালয়ের সচিব সিরাজুল ইসলাম বলেন, স্মার্ট কার্ড দেওয়ার আগে ভোটারদের তথ্য সংশোধনে অনলাইনে আবেদনের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। নতুন ভোটাররাও এ সুযোগ পাবেন। এতে তথ্যভান্ডার আরও নির্ভুল হবে।
জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক সুলতানুজ্জামান মো. সালেহউদ্দিন জানান, ভোটারদের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে এ সেবা দেওয়া হচ্ছে। নিবন্ধন করে নির্ধারিত পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করা যাবে।
অনুষ্ঠানে আবেদন প্রক্রিয়া শুরুর আগে জুবায়ের ইবনে সালেহ নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘আমি শেরপুর থেকে তথ্য পরিবর্তনের জন্য প্রকল্প অফিসে এসেছি। অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করে দেওয়া হবে বলে আমাকে এখানে আনা হয়েছে।’ এরপর জুবায়ের ওয়েবসাইটের নির্ধারিত ঘরে এনআইডি নম্বর ও জন্ম তারিখ বসিয়ে ক্লিক করেন। কিন্তু তাঁর মোবাইল ফোনে ফিরতি এসএমএস আসেনি।
সিইসি জানতে চান, ‘কিছু হচ্ছে না?’ জবাবে একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘আগারগাঁওয়ে আগুন লেগেছে। তাই সার্ভারে ঝামেলা হচ্ছে। দ্রুত ঠিক হয়ে যাবে।’ তখন সিইসি সার্ভার চালু করা যায় কি না, সে জন্য ওই কর্মকর্তাকে ফোন করতে বলেন।
কিন্তু সার্ভার শেষ পর্যন্ত চালু করা সম্ভব হয়নি। পরে সিইসি বলেন, সাময়িক অসুবিধার জন্য কাজটি করা না গেলেও অনলাইন সেবার উদ্বোধন ঘোষণা করা হচ্ছে।
অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক, মো. শাহ নেওয়াজ, আবু হাফিজ, জাবেদ আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন