default-image

অনলাইন দুনিয়ায় শিশুদের বিপদে পড়ার ঝুঁকি অনেক বেশি। অনেক সময় শিশুরা ফাঁদে পড়ে পাসওয়ার্ড ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য অপরিচিত বা স্বল্প পরিচিতদের দিয়ে দেয়, যা পরবর্তী সময়ে অপরাধীরা অসৎ উদ্দেশ্য সাধনের জন্য ব্যবহার করে থাকে।
‘নিরাপদ ইন্টারনেট দিবস’ উপলক্ষে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলা হয়।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর জিপি হাউসে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে গ্রামীণফোন। শিশুদের ইন্টারনেট দুনিয়ার বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে ধারণা দেওয়া এবং ইন্টারনেটের সম্ভাব্য বিরূপ প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা তৈরিতে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানের আলোচনায় বলা হয়, বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির কারণে মানুষকে দীর্ঘদিন গৃহবন্দী থাকতে হয়েছে। শিশুদেরও এ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। শিশুরা বাসায় বসেই শিক্ষা কার্যক্রম ও বিনোদনের জন্য অনলাইন ব্যবহার করেছে। এ পরিস্থিতিতে অপরাধীদের অনলাইন মাধ্যমে শিশুদের ক্ষতিসাধনের আশঙ্কা আছে।

বিজ্ঞাপন

ইন্টারনেট সুরক্ষার বিষয়ে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান বলেন, এখনকার প্রজন্ম অনলাইন প্ল্যাটফর্মে আগের চেয়ে বেশি সময় ব্যয় করছে। এ জন্য একই সঙ্গে তারা নানা ঝুঁকির মুখে পড়ছে। নিরাপদ অনলাইন দুনিয়ায় শিশুদের সচেতন করতে নানা উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। ইন্টারনেটে অপ্রত্যাশিত বিষয়ের মুখোমুখি বা বুলিংয়ের শিকার হলে অভিভাবকদের তা জানানোর পরামর্শ দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক বলেন, ‘পৃথিবীর সবচেয়ে ভালো ও বিশ্বস্ত বন্ধু হলো মা–বাবা। তারা সব সময় তোমাদের ভালো চায়। ইন্টারনেটে কোনো প্রতিকূলতার মুখোমুখি হলে মা–বাবাকে বলবে। তারাই সবচেয়ে বেশি তোমাদের ভালো চায়।
অনলাইন নিয়ে ভাবনা প্রসঙ্গে অনুষ্ঠানে শিশুরা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে তুলে ধরে।

এর মধ্যে ছিল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যক্তিগত কনটেন্টের সুরক্ষা, কতটুকু শেয়ার করা যাবে, অপরিচিতদের সঙ্গে যোগাযোগ, ভুল তথ্য চিহ্নিত করা, যেকোনো সংবাদের নির্ভুলতা নিরূপণের পদ্ধতি, ব্যক্তিগত তথ্য বেহাত হলে কার সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে ইত্যাদি।

এ অনুষ্ঠানে জানানো হয়, গেল বছর গ্রামীণফোন ও টেলিনর বাংলা ভাষার লার্নিং রিসোর্স প্ল্যাটফর্ম ‘ডিজিওয়ার্ল্ড বাংলা’ চালু করে। এই প্ল্যাটফর্ম ৫ থেকে ১৬ বছরের শিশুদের নিজের ভাষায় সঠিকভাবে অনলাইন মাধ্যম বুঝতে ও নিরাপদে অনলাইন মাধ্যম ব্যবহারে সহায়তা করছে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন গ্রামীণফোনের চিফ করপোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার ওলে বিয়র্ন স্লাস্টেন, স্ট্র্যাটেজিক প্রজেক্ট অ্যান্ড পার্টনারশিপ রাসনা হাসান, প্রধান যোগাযোগ কর্মকর্তা খায়রুল বাশার প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন