জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুত্তীর্ণ পোষ্যদের ভর্তির দাবিকে মামার বাড়ির আবদার আখ্যায়িত করে এর প্রতিবাদ করেছেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ায় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা সংবাদ সম্মেলন করে এ প্রতিবাদ জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ইন্দ্রজিৎ ভৌমিক। তিনি বলেন, অনুত্তীর্ণ পোষ্যদের ভর্তির দাবিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অযৌক্তিক আন্দোলন এ বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন নয়। ৯৬ জন অনুত্তীর্ণ পোষ্যকে ভর্তির দাবিতে এ বছরও তাঁরা কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছেন। এটা যেন মামার বাড়ির আবদার।

ইন্দ্রজিৎ ভৌমিক বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী আসন স্বল্পতার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারেন না। অথচ অনুত্তীর্ণদের ভর্তির দাবি করা হচ্ছে। এভাবে অনুত্তীর্ণদের ভর্তি করা হলে মেধার অবমূল্যায়ন হয়। শিক্ষার মানও নিম্নগামী হবে।

শিক্ষার্থীরা অনুত্তীর্ণ পোষ্যদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি না করা এবং অন্যান্য কোটার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে পোষ্য কোটার আসন সংখ্যা নির্ধারণ করার দাবি জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী তানজিদ বসুনিয়া, চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী নজির আমিন, ইতিহাস বিভাগের ইমরান নাদিম প্রমুখ।

২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় ১৩৯ জন পোষ্যের মধ্যে ৩৫ শতাংশ নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন মাত্র ৪৩ জন। বাকি ৯৬ জন পোষ্যই অনুত্তীর্ণ হয়েছেন। এই ৯৬ জনকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির দাবিতে আজ মঙ্গলবার ও কাল বুধবার পূর্ণদিবস কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

অনুত্তীর্ণদের ভর্তি করার সংস্কৃতি বন্ধের দাবিতে গত বছর উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপিও দেন শিক্ষার্থীরা।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন