বিজ্ঞাপন

এদিকে বেবিচকের ফ্লাইট চলাচলের শিথিল হওয়ার নির্দেশনায় ফ্লাইট শিডিউল ঘোষণা করেছে দেশের দুটি বেসরকারি এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ। আর রাষ্ট্রীয় এয়ারলাইনস বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ায় তারাও ফ্লাইটের সময়সূচি শিগগির ঘোষণা করবে।

নভোএয়ার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত প্রতিদিন চট্টগ্রাম, সৈয়দপুর ও যশোরে ৬টি করে ১৮টি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। এ ছাড়া প্রতিদিন বরিশালে চারটি, সিলেটে তিনটি, রাজশাহীতে তিনটি ও কক্সবাজারে দুটি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, দেশের অভ্যন্তরীণ সব গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করবে সংস্থাটি। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে পাঁচটি, কক্সবাজারে দুটি, সৈয়দপুরে সাতটি, যশোরে ছয়টি, সিলেট, বরিশাল ও রাজশাহীতে চারটি করে ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউএস-বাংলা।

গত বছরের মার্চে দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হলে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক গন্তব্যে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছিল বেবিচক। করোনার সংক্রমণ আবার বাড়ায় চলতি বছরের ৫ এপ্রিল থেকে অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর ২১ এপ্রিল থেকে আবার অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয় বেবিচক।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ১ জুলাই থেকে শুরু হওয়া এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধে আবার বন্ধ হয় অভ্যন্তরীণ গন্তব্যগুলোতে ফ্লাইট চলাচল। সে বিধিনিষেধ ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়। এখন বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ায় আবার অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট চলবে ১৫ জুলাই থেকে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন