default-image

দেশের বাইরে অর্থ পাচারে জড়িত ব্যক্তিদের বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং অন্যান্য তদন্ত সংস্থা কাজ করছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।
মন্ত্রিসভার বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানাতে আজ সোমবার আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ কথা বলেন।


হাইকোর্ট গতকাল রোববার দেশের বাইরে অর্থ পাচারে জড়িত ব্যক্তিদের নাম, ঠিকানা ও পাচার করা অর্থে তাঁদের বিদেশে বাড়ি তৈরিসহ বিস্তারিত তথ্য জানতে চেয়েছেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান, পররাষ্ট্রসচিবসহ বিবাদীদের আগামী ১৭ ডিসেম্বের মধ্যে ওই সব তথ্য জানাতে বলেছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে গণমাধ্যমে আসা প্রতিবেদন বিবেচনায় নিয়ে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত রুলসহ এই আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

বিষয়টি নিয়ে আজ এক সাংবাদিক মন্ত্রিপরিষদের সচিবের কাছে প্রশ্ন করলে জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেখছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং অন্যান্য তদন্ত সংস্থা এ নিয়ে কাজ করছে। অবশ্য বিষয়টি আজকের মন্ত্রিসভার কোনো আলোচ্য বিষয় ছিল না বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।


এর আগে ১৮ নভেম্বর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছিলেন, রাজনীতিবিদেরা নন, বিদেশে বেশি অর্থ পাচার করেন সরকারি চাকরিজীবীরা। গোপনে কানাডার টরন্টোতে অবস্থিত বাংলাদেশিদের বিষয়ে খোঁজ নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার ধারণা ছিল রাজনীতিবিদদের সংখ্যা বেশি হবে। কিন্তু আমার কাছে যে তথ্য এসেছে, সেটিতে আমি অবাক হয়েছি। সরকারি কর্মচারীদের বাড়িঘর সেখানে বেশি আছে এবং তাঁদের ছেলেমেয়েরা সেখানে থাকে। আমার কাছে ২৮টি কেস এসেছে এবং এর মধ্যে রাজনীতিবিদ হলেন ৪ জন।’

মন্তব্য করুন