default-image

করোনাভাইরাসের প্রকোপ মোকাবিলায় সর্বোচ্চ অর্ধেক কর্মীকে অফিসে হাজির রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। অধর্শতাধিক কর্মী করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যাংকটি। ব্যাংকটির মানবসম্পদ বিভাগ এ নিয়ে অফিস আদেশ জারি করেছে।

এতে বলা হয়েছে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাভাবিক কাযর্ক্রমে কোনো বিঘ্ন সৃষ্টি না করে বিভাগের কাজের ধরন অনুযায়ী সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ কর্মীকে অফিসে রেখে দাপ্তরিক কাজ সম্পন্ন করতে হবে। প্রতিটি বিভাগের প্রধান কাজের গুরুত্ব বিবেচনায় ও বাস্তবতার নিরিখে পর্যায়ক্রমিক দায়িত্ব বণ্টন বা রোস্টারিং করতে পারবেন। এ ছাড়া কর্মকর্তাদের অফিসে হাজিরের সময়কাল এমনভাবে নির্ধারণ করতে হবে, যাতে স্বাস্থ্যঝুঁকি ন্যূনতম পর্যায়ে থাকে এবং অফিসের কাজে কোনো বিঘ্ন না ঘটে। এই সময়ে যাঁরা বাসায় থাকবেন, তাঁরা অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবেন এবং কেউ কমর্স্থল ত্যাগ করতে পারবেন না।

এই সময়ে যেসব কর্মকর্তা স্বশরীরে অফিস করবেন, শুধু তাঁরাই দুপুরের খাবারের ভাতা পাবেন।

জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি ৩০ তলা ভবনে প্রায় পাঁচ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী অফিস করছিলেন। ভবনটিতে সবমিলিয়ে রয়েছে আটটি লিফটের ব্যবস্থা। করোনার কারণে চারজনের বেশি উঠতে দেওয়া হচ্ছে না।

ফলে সকাল থেকে দীর্ঘ লাইন পড়ে যাচ্ছে ওই ভবনের সামনে। এতেও কোনো দূরত্ব মানা হচ্ছিল না। এ কারণে অফিসারদের সংগঠনের পক্ষ থেকে রোস্টারিং পদ্ধতি চালুর দাবি জানানো হয়।

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ ব্যাংক তাদের নিজেদের কর্মীদের জন্য এই ব্যবস্থা নিলেও বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর বিষয়ে কিছু জানায়নি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0