বিজ্ঞাপন

স্থলবন্দর সূত্রে জানা গেছে, গত তিন দিনে স্থলবন্দর দিয়ে আসা ১৭২ জন বাংলাদেশিকে কুমিল্লায় কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে ৩৩৩ জন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত ফেরা ৯৪ জনের মধ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দূতাবাসে কর্মরত দুজন ভারতীয় নাগরিক রয়েছেন। তাঁদের ঢাকার গুলশানে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া স্থলবন্দর দিয়ে আসা নাগরিকদের মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তিনজন সদস্যও রয়েছেন। তাঁদের ঢাকার সিএমএইচে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। বাকি ১৫ জনকে জেলার প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে এবং ৭৪ জনকে কুমিল্লায় কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে।

default-image

এর আগে গত মঙ্গলবার আসা ৩৬ জন, গত বুধবার আরও ৬৩ জন এবং সর্বশেষ আজ বৃহস্পতিবার নতুন করে আসা আরও ৭৪ জন বাংলাদেশিকে কুমিল্লায় পাঠানো হয়। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন পূর্ণ করায় বৃহস্পতিবার ৪৬ জনকে নতুন করে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত সর্বমোট ২৩৩ জনকে কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। দুই দেশে আটকা পড়া যাত্রীরা উভয় দেশে নিযুক্ত হাইকমিশনারের অনুমতি এবং দুই দেশের সরকারের কিছু নির্দেশনা অনুসরণ করে যাতায়াত করছেন।

আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নূর-এ আলম প্রথম আলোকে বলেন, আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে আসা বাংলাদেশি নাগরিকদের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাতটি আবাসিক হোটেলসহ নয়টি প্রতিষ্ঠানে কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে। জেলায় বর্তমানে আর কোনো আবাসিক হোটেল নেই। তাই স্থলবন্দর দিয়ে নতুন করে আসা যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনে রাখার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে কুমিল্লায় পাঠানো হচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন