অতিবর্ষণে দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের জন্য স্বস্তির খবর—আজ থেকে বৃষ্টিপাত কিছুটা কমতে পারে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার তা আরও কমে যাবে। এরপর দু-তিন দিন বিরতি দিতে পারে বৃষ্টিপাত। তবে তারপর আবার শুরু হতে পারে অঝোর বৃষ্টি। চলতি মাসের প্রায় বেশির ভাগ সময় এমন থেমে থেমে বৃষ্টি হতে পারে বলে মনে করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

তবে ভূমিধসের ঝুঁকিতে থাকা অঞ্চল পার্বত্য চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও সিলেটে আজও ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে। এতে ওই এলাকায় পাহাড়ধসের আশঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া দেশের সব নদীবন্দরে ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেত পারে। এ জন্য দেশের সব নদীবন্দরকে ১ নম্বর সতর্কসংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, দেশের বিভিন্ন এলাকায় মৌসুমি বায়ু কিছুটা কম সক্রিয় হয়ে উঠছে। এতে আজ থেকে শুরু করে আগামী দু-তিন দিন বৃষ্টিপাত কমে আসতে পারে। তিন দিনের মাথায় আবার বৃষ্টিপাত বাড়তে পারে।

এদিকে গতকাল বুধবার দেশে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে কক্সবাজারে, ২৭১ মিলিমিটার। রাজধানীতে ৫২ মিলিমিটার বৃষ্টি হওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এ ছাড়া ফেনীতে ১৪১ ও পটুয়াখালীতে ১১৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। তবে দেশের তিন পার্বত্য জেলায় বৃষ্টিপাত তুলনামূলকভাবে কম ছিল। রাঙামাটিতে ২৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

আজকের জন্য দেওয়া আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আজ দেশের অধিকাংশ স্থানে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। ফলে ওই দুই বিভাগের কিছু কিছু স্থানে পাহাড়ধস হতে পারে। 

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন