হরেক রকমের টুপি

আতর-টুপির জন্য নামকরা বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মার্কেট। আতর-টুপির কয়েকটি দোকান ঘুরে জানা গেল, সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা দামের যে টুপি, তা পরিচিত পেশোয়ারি টুপি নামে। এসব দোকানে আরও আছে সুলতান সোলেমানি টুপি, দাম ২ হাজার ৫০০ টাকা; রুমি টুপি ২ হাজার টাকা, ওমানি টুপি ১ হাজার ২০০ টাকা, মিসরীয় টুপি ১ হাজার টাকা, মুম্বাই টুপি ৭০০ টাকা, পাকিস্তানি সিন্ধি টুপি ১ হাজার টাকা, পাকিস্তানি আলকব টুপি ৫০০ টাকা ও আফগানি টুপির দাম ৫০০ টাকা।

টুপি বিক্রেতাদের ভাষ্য, দামি টুপির ক্রেতা কম। তবে ঈদের আগে দামি টুপির চাহিদা কিছুটা বেড়ে যায়। বেচাকেনা বেশি দেশি কারখানায় তৈরি করা টুপির। ঈদের আগে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে আল-ফারুকের টুপি, ফিরোজের টুপি, দেশি জালি টুপি প্রভৃতি।

জমজমাট আতরের বেচাকেনাও

বায়তুল মোকাররম মার্কেটের যে আতরের দোকানগুলো রয়েছে, সেখানে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার (এক তোলা) টাকা দামের আতর রয়েছে, তার নাম উদ আতর (সৌদি আরব)। এ ছাড়া দামি আতরের মধ্যে আছে আল হারমাইন শেখ (এক তোলা ২০ হাজার টাকা), কস্তুরি (এক তোলা ১৪ হাজার টাকা) ও মুস্তাহ আল তাহারা (এক তোলা সাড়ে ৪ হাজার টাকা)। তবে আতরের দোকানগুলোয় বেশি বিক্রি হচ্ছে আলিফ, আল ফারহান, আল ইসরাত, আল রিসাব, জান্নাতুল ফেরদাউস, রজনীগন্ধা, বকুল, সুরভি ও বেলি ফুলের আতর।

মীম ক্যাপ আতর হাউসের মালিক ফরহাদুল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, যাঁরা টুপি কিনছেন, তাঁদের কেউ কেউ আতরও কিনছেন। সব মিলিয়ে ঈদের আগে বেচাকেনা ভালো হচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন