default-image

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে কাল সোমবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে। 

ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে সপ্তাহে দুদিন বসবেন আদালত। যার মধ্য দিয়ে এবার সর্বোচ্চ আদালতেও ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচারিক কার্যক্রমের যাত্রা শুরু হতে যাচ্ছে।

আজ রোববার আপিল বিভাগের রেজিস্ট্রার মো. বদরুল আলম ভূঞা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানা গেছে। বিজ্ঞপ্তিটি সুপ্রিম কোর্টের ওয়েব সাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

সন্ধ্যায় সুপ্রিম কোর্টের ওয়েব সাইটে গিয়ে দেখা যায়, প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ছয় সদস্যের পূর্নাঙ্গ বেঞ্চের সোমবারের কার্যতালিকায় ২০টি মামলা রয়েছে। বেঞ্চের অপর পাচ সদস্য হলেন, বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার, বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান। 

এর আগে দুপুরে বদরুল আলম ভূঞা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে ভার্চুয়াল কোর্টের মাধ্যমে বিচারকাজ পরিচালিত হবে মর্মে দেশের প্রধান বিচারপতি অনুমোদন দিয়েছেন। 

পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত আপিল বিভাগের ভার্চুয়াল কোর্টে প্রত্যেক সপ্তাহের সোম ও বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা হতে বেলা সোয়া ১টা পর্যন্ত শুনানি গ্রহণ করা হবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণজনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সাধারণ ছুটি চলাকালে গত ৯ মে আদালত কর্তৃক তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার অধ্যাদেশ জারি করে সরকার। ফলে অডিও-ভিডিও বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে শারীরিক উপস্থিতি ছাড়া ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে বিচারকাজ পরিচালনার সুযোগ তৈরি হয়।

অধ্যাদেশটি গত ৯ জুলাই আইনে পরিণত হয়েছে। অধ্যাদেশের বিধান অনুসারে, আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের ক্ষেত্রে ভার্চুয়াল কোর্টের জন্য পৃথক প্রাকটিস ডাইরেকশন, আইনজীবীদের জন্য ভার্চুয়াল কোর্টরুম ব্যবহার

ম্যানুয়াল, অধস্তন আদালত ও ট্রাইব্যুনালে ভার্চুয়াল শুনানি করতে বিশেষ প্রাকটিস নির্দেশনা প্রকাশ করা হয়। প্রাকটিস ডাইরেকশনসহ ম্যানুয়ালে ব্যবহারিক দিক-নির্দেশনা রয়েছে।
গত ১১ মে থেকে ভার্চুয়াল আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর থেকে হাইকোর্টের পৃথক ১৩টি বেঞ্চে এবং আপিল বিভাগের চেম্বার কোর্টে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচার কার্যক্রম চলে আসছে।

এ অবস্থায় আজ ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে আপিল বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি এল। এর মধ্য দিয়ে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে বিচার কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে, যা দেশের বিচার বিভাগের ইতিহাসে প্রথম।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন