বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘আমরা এখনই আফগানিস্তানের নতুন সরকারকে স্বীকৃতি দেওয়ার কথা ভাবছি না। কারণ, এটি তাদের অন্তর্বর্তীকালীন সরকার। আমরা স্থায়ী সরকারের জন্য অপেক্ষা করব। এ বিষয়ে আমরা পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। নারীর অধিকারসহ মৌলিক কিছু বিষয়ে তালেবানের নীতি পর্যবেক্ষণ করছে ঢাকা। তবে দেশটির উন্নয়নে জাতিসংঘ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মতো বহুপক্ষীয় উদ্যোগ নেওয়া হলে, তাতে ঢাকার সমর্থন থাকবে।’

দুই দশকের যুদ্ধ শেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের আফগানিস্তান ত্যাগের মধ্যে গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। এর তিন সপ্তাহের মাথায় মঙ্গলবার অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা ঘোষণা করেছে তালেবান। অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনের প্রতিশ্রুতি দিলেও তালেবান তাদের পুরনো নেতা এবং সহযোগী হাক্কানি নেটওয়ার্কের নেতাদের নিয়ে এই মন্ত্রিসভা গঠন করেছে। সরকারপ্রধানসহ তাদের মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্য সন্ত্রাসের জন্য জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের কালো তালিকায় রয়েছে। এই ব্যক্তিদের মন্ত্রিসভায় রাখায় হতাশা প্রকাশ করেছে পশ্চিমারা। অপর দিকে চীন, পাকিস্তানসহ কয়েকটি দেশ তালেবানের সরকার গঠনকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন