default-image

বর্ষায় থাকত থইথই পানি। আর শুষ্ক মৌসুমে ইটভাটার লোকজনের কর্মচাঞ্চল্যে জমজমাট থাকত পুরো এলাকা। রাজধানীর অদূরে আশুলিয়ায় তুরাগ নদের উভয় পাশের এই চিত্র এবার কিছুটা বদলে গেছে। বন্ধ হয়ে যাওয়া ইটভাটার আশপাশের অব্যবহৃত জমিতে এবার দেখা যাচ্ছে সবুজের সমারোহ। স্থানীয় কৃষকেরা আবাদ করেছেন লাউ, শিম, টমেটো, কপিসহ নানা ধরনের সবজি।

সাভার থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে তুরাগ নদের পাশে আশুলিয়ার পাড়াগ্রাম ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। এ এলাকার পাশে তুরাগ নদের তীরে ফসলি জমিতে গড়ে উঠেছিল বেশ কয়েকটি ইটভাটা। অথচ একসময় ওই সব জমিতে সব ধরনের ফসলের আবাদ করতেন এলাকার কৃষকেরা। ইটভাটার কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু গত বছর ইটভাটার বিরুদ্ধে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান জোরদার হওয়ার পর এলাকার কৃষকেরা আবার আশার আলো দেখছেন।

পাড়াগ্রামের কৃষক মজিবর রহমানের নিজের জমি না থাকলেও তিনি একসময় অন্যের জমি বন্ধক নিয়ে কৃষিকাজ করে সংসার চালাতেন। তবে চাষের জমি ইটভাটা দখল করে নেওয়ার পর তিনি পেশা বদল করেছিলেন। কিন্তু গত এক বছরে কয়েকটি ইটভাটা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আবার তিনি চাষাবাদ শুরু করেছেন। তিনি এবার ইটভাটার আশপাশে অব্যবহৃত পাঁচ বিঘা জমি বন্ধক নিয়ে লাউ, শিম, টমেটোসহ বিভিন্ন ধরনের সবজির আবাদ করেছেন।

মজিবর রহমান জানালেন, পাঁচ বিঘা জমি তিনি এক বছরের জন্য বন্ধক নিয়েছেন ৩০ হাজার টাকায়। সার, কীটনাশক, বীজ, শ্রমিকের মজুরিসহ চাষ বাবদ তাঁর খরচ হয়েছে আরও প্রায় ৬০ হাজার টাকা। এর মধ্যে দুই বিঘা জমির ধুন্দুল বিক্রি করে পেয়েছেন তিনি ৮০ হাজার টাকা। লাউ, শিম ও টমেটো থেকে আরও প্রায় দুই লাখ টাকা পাবেন বলে আশা করছেন তিনি।

খেত থেকে ফুলকপি তুলছিলেন আমিনুল ইসলাম। তিনি বন্ধ হয়ে যাওয়া একটি ইটভাটার পাশে ২৮ শতাংশ জমিতে কপির আবাদ করেছেন। খরচ হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত ৫০ হাজার টাকার কপি বিক্রি করেছেন। আরও ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকার কপি তাঁর খেতে রয়েছে। এরই মধ্যে তিনি ওই জমিতে ধুন্দুলের বীজ বপন করতে শুরু করেছেন। তিনি বলেন, ইটভাটার কারণে তাঁদের এলাকায় চাষাবাদ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। ইটভাটা বন্ধ হয়ে গেলে এলাকার কৃষকেরা আবার চাষাবাদে ঝুঁকবেন।

স্থানীয় আশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও পাড়াগ্রামের বাসিন্দা রুহুল মণ্ডল বলেন, তাঁর এলাকায় একসময় ধান, পাট, গম, সরিষাসহ নানা ধরনের সবজির আবাদ হতো। এলাকার অধিকাংশ মানুষের আয়ের উৎস ছিল কৃষি, কিন্তু ২০ বছর আগে একের পর এক ইটভাটা গড়ে ওঠায় সব জমি অনাবাদি হয়ে পড়ে। সরকার ইটভাটা বন্ধের উদ্যোগ নেওয়ায় এ এলাকায় আবার চাষাবাদের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। অনেকেই বন্ধ হয়ে যাওয়া ভাটার আশপাশে সবজির আবাদ শুরু করেছেন।

পরিবেশ অধিদপ্তরের ঢাকা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শরিফুল ইসলাম বলেন, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী রাজধানীর চারপাশের সব অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদ করা হবে। ইতিমধ্যে আশুলিয়াসহ রাজধানীর চারপাশের বেশ কয়েকটি ভাটা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ইটভাটা বন্ধ হয়ে গেলে কৃষকেরা আবার ওই সব জমি কৃষিকাজে ব্যবহার করতে পারবেন।

সাভারের উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাজিয়াত আহমেদ বলেন, ইটভাটার কারণে সাভারে কৃষি উৎপাদন কমে গেছে। ভাটা বন্ধ হয়ে গেলে কৃষিজমি বাড়বে। ইটভাটার ব্যবহৃত জমি চাষের জন্য কৃষকদের উৎসাহিত করা হবে। প্রয়োজনে তাঁদের বিনা মূল্যে সার ও বীজ সরবরাহ করা হবে। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে আশুলিয়ায় বন্ধ হয়ে যাওয়া কয়েকটি ভাটার আশপাশে শীতকালীন সবজির আবাদ হয়েছে। পরামর্শ দিয়ে কৃষকদের সহায়তা করা হচ্ছে। এতে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0