প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক আবু জাফর শামসুদ্দীন স্মরণে বাংলা একাডেমীতে গতকাল আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মঙ্গলবার বিকেলে একাডেমীর কবি শামসুর রাহমান সভাকক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান। ‘আবু জাফর শামসুদ্দীন: শিকড় সন্ধানী মানুষ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সুব্রত বড়ুয়া। আলোচনায় অংশ নেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মফিদুল হক। সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক হায়াৎ মামুদ। 

সভাপতির বক্তব্যে হায়াৎ মামুদ বলেন, আবু জাফর শামসুদ্দীন ছিলেন সমাজের সামগ্রিক ক্ষয়-পশ্চাৎপদতা-মৌলবাদিতা ও সংকীর্ণতার বিপরীতে এক মহৎ মূল্যবোধের সাধক। সমাজতাত্ত্বিক-নৃতাত্ত্বিক জ্ঞান তাঁর সাহিত্যচিন্তাকে পূর্ণতা দিয়েছিল; এই পূর্ণতার বোধই তাঁকে পরিণত করেছে একজন অসাম্প্রদায়িক-আধুনিক এবং সর্বোপরি মানবতাবাদী মানুষ হিসেবে।

স্বাগত বক্তব্যে শামসুজ্জামান খান বলেন, আবু জাফর শামসুদ্দীনকে স্মরণের মধ্য দিয়ে বাংলা একাডেমী মূলত তাঁর মানবতাবাদী, অসাম্প্রদায়িক চেতনার প্রতিই সম্মান জ্ঞাপন করছে।

সুব্রত বড়ুয়া তাঁর প্রবন্ধে বলেন, বাঙালি জাতীয়তাবাদী ধারণার অন্যতম বুদ্ধিবৃত্তিক উদ্গাতা আবু জাফর শামসুদ্দীন তাঁর ত্রয়ী উপন্যাস সংকর সংকীর্তন, পদ্মা মেঘনা যমুনা, ভাওয়ালগড়-এর উপাখ্যানের মধ্য দিয়ে মূলত বাঙালির নৃতাত্ত্বিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক অভিযাত্রাকে ধারণ করেছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0