ইউএনও ওয়াহিদার অবস্থার উন্নতি, এইচডিইউতে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত

বিজ্ঞাপন
default-image

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) থেকে হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। চিকিৎসকেরা বলছেন, আগের চেয়ে ওয়াহিদা খানমের অবস্থার উন্নতি হওয়ায় তাঁকে এইচডিইউতে নেওয়া হচ্ছে। তাঁকে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রাখা হবে।

আজ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালের চিকিৎসকেরা সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওয়াহিদা খানমের চিকিৎসায় আট সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বোর্ডের প্রধান ও হসপিটালের নিউরোট্রমা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক মো. জাহেদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘৭২ ঘণ্টার নিবিড় পর্যবেক্ষণ শেষে তাঁকে (ওয়াহিদা) এইচডিইউতে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় তাঁকে আমরা এইচডিইউতে নিয়ে যাব। এইচডিইউর সার্ভিসটা একই হবে। নিবিড় পর্যবেক্ষণ চলবে। তবে তাঁকে আইসিইউতে রাখার প্রয়োজনীয়তা নেই। তাঁর ডান পাশ অবশ। সেটার কোনো উন্নতি এখনো হয়নি। এটার উন্নতি হবে, কীভাবে হবে, সেটা আমরা বলতে পারব না।’

চিকিৎসকেরা জানান, ওয়াহিদা খানমের শরীরের ডান পাশের উন্নতির জন্য তাঁকে ফিজিওথেরাপি দেওয়া হচ্ছে। তিনি কথা বলতে পারছেন। পরিবারের কথা জিজ্ঞেস করছেন। স্বামীর সঙ্গে কথা বলেছেন। এ থেকে বলা যায়, তিনি জ্ঞানের দিক থেকে স্বাভাবিক অবস্থায় আছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওয়াহিদা খানম শঙ্কামুক্ত কি না, তা জানতে চাইলে অধ্যাপক মো. জাহেদ হোসেন বলেন, ‘৭২ ঘণ্টার অবজারভেশন গতকাল রোববার রাতে শেষ হয়েছে। আজ সকালে মেডিকেল বোর্ড বসেছে। বসে তাঁকে এইচডিইউতে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি (ওয়াহিদা) শঙ্কামুক্ত—এটা বলা যাবে না। যেহেতু তিনি মাথায় বড় একটা আঘাত পেয়েছেন, যেকোনো সময় যেকোনো কিছু ঘটতে পারে।’

এদিকে একই হামলায় আহত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওয়াহিদা খানমের বাবা ওমর আলী শেখের (৭০) কোমরের নিচের অংশ হঠাৎ অবশ হয়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওয়াহিদা ও তাঁর বাবার ওপর হামলার প্রধান সন্দেহভাজন যুবলীগের স্থানীয় নেতা আসাদুল ইসলামকে সাত দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

জেলার পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন বলছেন, ইউএনওর ওপর হামলার ঘটনাটি বিভিন্ন দিকে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে কয়েকজনকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে।

গত বুধবার মধ্যরাতে ঘোড়াঘাটের ইউএনওর সরকারি বাসভবনের ভেন্টিলেটর দিয়ে ঢুকে দুর্বৃত্তরা ওয়াহিদা ও তাঁর বাবার ওপর হামলা চালায়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন