বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গণিতের মেধাবী মেয়েদের টুপি খোলা অভিবাদন জানিয়েছেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সদস্য মোহাম্মদ কায়কোবাদ। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান বলেন, ‘দুটি ব্রোঞ্জ, দুটি সম্মানসূচক স্বীকৃতি। চারজনের কেউ খালি হাতে ফেরেনি। আমাদের গর্বের জায়গাটা আরও একটু ওপরে তুলে দিয়েছে।’

এ প্রতিযোগিতার বাংলাদেশ দলের দলনেতা গণিত অলিম্পিয়াডের একাডেমিক কাউন্সিলর ঈপ্সিতা বহ্নি বলেন, ‘গত বছরের দলীয় মোট ২৭ পয়েন্টের তুলনায় এবারের মোট অর্জন ৫৭ পয়েন্ট। নিঃসন্দেহে আমাদের মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে। আমি আমাদের মেয়েদের জন্য খুব খুশি ও গর্বিত!’

default-image

এর আগে ৮ ও ৯ এপ্রিল দুই দিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ দলের ৪ সদস্য ঢাকার একটি কেন্দ্র থেকে ভার্চ্যুয়ালি অংশ নেন। হাঙ্গেরি থেকে আয়োজক কমি‌টি এ অলিম্পিয়াড পরিচালনা করেছে।

ইউরোপিয়ান গার্লস ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াড (ইজিএমও) মূলত মেয়েদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড। ২০১২ সালে শুরু হয় এই প্রতিযোগিতা। সর্বোচ্চ ২০ বছর বয়সী উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা এতে অংশগ্রহণ করতে পারেন। প্রতিযোগীদের এখানে ৬টি গাণিতিক সমস্যা সমাধান করতে হয়। এ বছর এই অলিম্পিয়াডে ৫৭টি দেশের ২২২ মেয়ে প্রতিযোগী অংশ নিয়েছে। প্রতিদিন ৩টি করে সমস্যা সমাধান করতে হয়েছে অংশগ্রহণকারীদের।

default-image

বাংলাদেশ দলে আরও ছিলেন উপদলনেতা হিসেবে গণিত অলিম্পিয়াডের একাডেমিক কাউন্সিলর মুরসালিন হাবিব এবং পর্যবেক্ষক হিসেবে ছিলেন একাডেমিক কাউন্সিলর নিশাত আনজুম।

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির তত্ত্বাবধানে, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হ‌য়ে‌ছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন