default-image

উইমেন এন্ট্রাপ্রেনিউর অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (উই) বোর্ড নির্বাচন অনলাইনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৪ জুলাই ২০২০-২০২২-এর জন্য নতুন বোর্ড নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট হয়েছেন তুতলি রহমান। তিনি বাংলাদেশ হেরিটেজ ক্র্যাফ্ট ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং উইংস-নারী সহায়তা গ্রুপ এবং জনপ্রিয় টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব।

নির্বাচিত নতুন সদস্যদের মধ্য ভাইস প্রেসিডেন্ট-১ হয়েছেন রুবিনা হোসেন (সেবা খাত দক্ষতা উন্নয়ন এবং কর্মসংস্থান), ভাইস প্রেসিডেন্ট-২ হয়েছেন নূরজাহান শাহাব (পরিচালক-অর্থ, জিসান গ্রুপ অব কোম্পানি)। লা রুজ ফ্যাশন লেদার ব্যাগসের প্রধান নির্বাহী মাহজাবিন হাশিম হয়েছেন সেক্রেটারি।

জয়েন্ট সেক্রেটারি হয়েছেন সানজিদা হক (প্রতিষ্ঠাতা, প্রতিনিধি, দরিদ্র প্রবীণ কল্যাণ), ট্রেজারার নীলু সিদ্দিক, জয়েন্ট ট্রেজারার খুরশিদা রহমান (খামার), পরিচালক নিলুফার করিম (জেন্ডার এবং প্রশিক্ষণ বিশেষজ্ঞ), বদরুন নাহার (ব্যবসায়ী), আকলিমা সুলতানা সনি (ব্যবসায়ী), আফরোজা নাজনীন সুমি (স্বত্বাধিকারী, সুমসি কিচেন), নাসরিন খান অনি (স্বত্বাধিকারী, বিউটি সেলুন), শিরিন দত্ত (হস্তশিল্প রপ্তানিকারক)।

বাংলাদেশ সরকারের মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের অধীনে নিবন্ধিত অলাভজনক একটি সংগঠন উই। ১৯৯৩ সালে দেশের প্রথম নারী ব্যবসায়ীদের সংগঠন হিসেবে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। গত বছর গুলশান ক্লাবে আয়োজন করা হয় উই–এর ২৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান।

রোকিয়া আফজাল এর প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট। তিনি স্বপ্ন দেখতেন এ সংগঠন বাংলাদেশের নারীদের স্বার্থ রক্ষা করবে। দেশের প্রথম নারী উদ্যোক্তা সংগঠন হিসেবে এর প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।

ব্যবসায় নারীকে উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্য নিয়ে উই–এর জন্ম। তৈরি পোশাকশিল্প, অলংকার, হস্তশিল্প, তাঁত, চামড়াজাত পণ্য, ওষুধশিল্প, কাস্টমার সার্ভিস, আইসিটিসহ বিভিন্ন সেক্টরে নারীকে সহায়তা দিচ্ছে উই। নারী উদ্যোক্তাদের জন্য অনুকূল ব্যবসার পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য অধিপরামর্শ এবং নিয়মিত দক্ষতা উন্নয়নের জন্য এ সংগঠন কাজ করছে।

রোকিয়া আফজাল বলেন, ২৬ বছর আগে ঘরের মেঝেতে বসে সংগঠনের সদস্যরা উদ্যোক্তাদের জন্য পথচলার রূপরেখা রচনা করেছিল। আজ উই–এর সদস্যরা সবাই নিজের পায়ে উঠে দাঁড়িয়েছে। ১৫ জন সদস্য নিয়ে কাজ শুরু করে আজকে আমাদের সদস্যসংখ্যা ১৫০।

নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট তুতলি রহমান বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির এ সময়ে আমাদের সব অনুষ্ঠান অনলাইন প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হবে। আমরা দ্রুত শিখে নেব কীভাবে অনলাইনে ইভেন্ট করতে হয় এবং কীভাবে জুম মিটিং হয়। আমরা অনলাইনে অধিপরামর্শ, প্রশিক্ষণ, ওয়েবিনার এবং মহামারির এ সময়ে সাহস জোগাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করব। এটাই আগামী দুবছরে (২০২০-২০২১) আমাদের লক্ষ্য। সবাই নিরাপদে থাকুন, আশায় বেঁচে থাকুন। বিজ্ঞপ্তি

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0