default-image

আইন নিজের হাতে তুলে না নিয়ে উসকানিমূলক কিছু নজরে এলে তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরে দিতে আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আজ বুধবার সকালে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তাঁর সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সম্প্রতি ধর্মীয়সহ নানা ইস্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি মতলবি মহল উদ্দেশ্যমূলক গুজব ছড়াচ্ছে। রাষ্ট্র ও সরকারের বিরুদ্ধে চালাচ্ছে অপপ্রচার।

বিজ্ঞাপন

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, উসকানিমূলক পোস্ট শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এসব মিথ্যা প্রচারণা নিঃসন্দেহে শাস্তিমূলক অপরাধ। সবার প্রতিটি ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। হতে হবে পরধর্মসহিষ্ণু। কারও ধর্মবিশ্বাসে আঘাত বা কটাক্ষ করে পোস্ট দেওয়া প্রত্যাশিত নয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশে এই মুহূর্তে কোনো রাজনৈতিক সংকট নেই। সংকট চলছে বিএনপির রাজনীতিতে। বারবার আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থতার কারণে বিএনপির রাজনীতিতে এখন সংকটের কালো ছায়া পড়েছে। বিএনপির দলীয় নেতৃত্বের মধ্যেও এখন পারস্পরিক আস্থার সংকট চরমে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি কথায় কথায় গণতন্ত্রের কথা বলছে। তারা কোন গণতন্ত্রের কথা বলছে? তাদের ভাষায় গণতন্ত্র কি তাহলে হালুয়া-রুটির গণতন্ত্র?

বিএনপির গণতন্ত্র হচ্ছে এক চিমটি লবণ, এক মুষ্টি গুড় আর আধা সের পানির মিশ্রণের মতো গণতন্ত্র। গণতন্ত্র একটি বিকাশমান প্রক্রিয়া। এ প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিতে হলে সবাইকে আরও অনেক পথ ধরে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, অবিরাম অগণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে হটানোর যে ঘোষণা, তা কি তাদের (বিএনপি) গণতন্ত্র? নেতিবাচকতা, মিথ্যাচার আর ষড়যন্ত্র ছাড়া গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের সুরক্ষায় বিএনপি কী করেছে, তাও জানতে চান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

জনপ্রত্যাশা থেকে ছিটকে পড়ে বিএনপি এখন মুক্তিযুদ্ধ, গণতন্ত্র, মানবাধিকার, ন্যায়বিচারের কথা বলছে বলে উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, এসব কিছু তাদের (বিএনপি) শাসনামলে ভূলুণ্ঠিত হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির জনক বিএনপি। তারা সংবিধান থেকে গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের মূলোৎপাটন করেছিল।

বিজ্ঞাপন

বিএনপির মহাসচিব অভিযোগ করেছেন, সরকার মুক্তিযুদ্ধের সব অর্জন ধ্বংস করে দিচ্ছে। এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এ মন্তব্যের জবাবে হাসব না কাঁদব! যারা এখনো মুক্তিযুদ্ধবিরোধী এবং সাম্প্রদায়িক অপশক্তির দোসরদের বিশ্বস্ত আশ্রয়, তাদের মুখে এ কথা মানায় না। মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তিকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিল বিএনপি। তাই তাদের মুখে স্বাধীনতার সুরক্ষার কথা মানায় না।’

আসন্ন শীতে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় তরঙ্গের বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের সতর্কের কথা উল্লেখ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, ইতিমধ্যে ইউরোপের কয়েকটি দেশে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় লকডাউন আরোপ করা হয়েছে। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বাংলাদেশেও করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ধীরে ধীরে বেড়ে চলছে। এমন অবস্থায় যেকোনো আশঙ্কা থেকে মুক্ত থাকতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই।

মন্তব্য পড়ুন 0