বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত ২৮ আগস্ট ভারতীয় বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষকে (বেবিচক) দেওয়া এক চিঠিতে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে এয়ার বাবল চুক্তির আওতায় ফ্লাইট চলাচলের প্রস্তাব দেওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বেবিচক গত বৃহস্পতিবার ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে পাল্টা এক চিঠিতে জানায়, ৪ সেপ্টেম্বর থেকে ফেয়ার বাবল চুক্তির আওতায় ফ্লাইট চলাচল শুরু হতে পারে।

দুই দেশের মধ্যে নিয়মিত ফ্লাইট চলাচল শুরু হওয়ার আগপর্যন্ত এই চুক্তির আওতায় ফ্লাইট চলাচল করবে। এয়ার বাবল চুক্তি হচ্ছে, এক গন্তব্য থেকে আরেক গন্তব্যে সরাসরি ফ্লাইট। এর মধ্যে কোনো ট্রানজিট থাকবে না।

এর আগে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে গত ২৮ আগস্ট বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষকে (বেবিচক) দেওয়া এক চিঠিতে ৩ সেপ্টেম্বর থেকে ফ্লাইট চলাচলের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। এর পরিপ্রেক্ষিতে বেবিচক গত বৃহস্পতিবার ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে পাল্টা চিঠি দিয়ে জানায়, ৪ সেপ্টেম্বর ফ্লাইট চলাচল শুরু হতে পারে।

গতকাল শনিবার বেবিচক এ–সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে। তাতে বলা হয়, বেবিচক জানিয়েছে, ভারত থেকে আসা যাত্রীরা বিজনেস ভিসা নিয়ে বাংলাদেশে আসতে পারবেন। আসার পর তাঁদের ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভারত তাদের তিনটি এয়ারলাইনসকে সপ্তাহে সাতটি ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে। এর মধ্যে প্রতি সপ্তাহে স্পাইস জেট তিনটি এবং ইনডিগো ও এয়ার ইন্ডিয়া দুটি করে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। এ সময় ভারত থেকে যাঁরা বাংলাদেশে যাবেন, তাঁদের বাংলাদেশ সরকার–নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসতে হবে।

আর যাঁরা বাংলাদেশ থেকে ভারত যাবেন, তাঁদের ভারতীয় বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর নিজ খরচে করোনার পরীক্ষা করাতে হবে। তবে এই সময়ে ভ্রমণ ভিসাধারী যাত্রীদের ভারতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে না।

ভারত থেকে কেউ আসতে চাইলে বিজনেস ভিসায় বাংলাদেশে আসতে পারবেন। বাংলাদেশে আসার পর তাঁদের ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।
বাংলাদেশ থেকে ভারতে যেতে হলে যাত্রা শুরুর ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনার পরীক্ষা করে নিতে হবে। আবার ভারতের বিমানবন্দরে নেমে যাত্রীকে নিজ খরচে করোনার পরীক্ষা করতে হবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন