রাজধানীর পল্টনের কালভার্ট রোডে ঢাকা ওয়াসার খোলা ম্যানহোলে পড়ে এক ব্যক্তি মারা যাওয়ার ঘটনায় ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হাইকোর্টে হাজির হয়েছেন। দুজনের পক্ষে নিজ নিজ আইনজীবী তাঁদের মক্কেলদের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন।

শুনানি নিয়ে আদালত পল্টন এলাকার সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীর তালিকা আজ রোববার দুপুরের মধ্যে আদালতে দাখিল করতে বলেছেন। একই সঙ্গে এমডি ও সিইওকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ বেলা দুইটায় এ বিষয়ে আদেশের জন্য পরবর্তী সময় রেখেছেন।

আদালতে ঢাকা ওয়াসার এমডি তাসকিন আহমেদের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ ও আইনজীবী মাহবুব শফিক। ডিএসসিসির সিইও খান মো. বেলালের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ বি এম আলতাফ হোসেন।

ম্যানহোলে পড়ে এক ব্যক্তি মারা যাওয়ার ঘটনায় ৭ মার্চ ঢাকা ওয়াসার এমডি ও ডিএসসিসির সিইওকে তলব করেন হাইকোর্ট। আদালতের আদেশে ওই দুই কর্মকর্তা আজ সশরীরে হাইকোর্টে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দেন।

‘পল্টনে খোলা ম্যানহোলে পড়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু’ শিরোনামে প্রথম আলোয় প্রকাশিত প্রতিবেদন বিবেচনায় নিয়ে ৭ মার্চ আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুলসহ আদেশ দেন।

রুলে বিবাদীদের কর্তব্যে অবহেলার কারণে এক ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনায় কেন তাঁদের দায়ী করা হবে না, তাঁদের বিরুদ্ধে কেন ফৌজদারি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না এবং মৃত ব্যক্তির পরিবারকে কেন ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

স্থানীয় সরকার সচিব, ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার, ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, নির্বাহী প্রকৌশলী (ড্রেনেজ বিভাগ), প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ও পল্টন থানার ওসিকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন