default-image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের নাগরিকদের প্রাণহানি অব্যাহত রয়েছে। গত তিন দিনে নতুন করে অন্তত ১৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। সৌদি আরব, কাতার, ফ্রান্সে এসব প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। আজ শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ১ হাজার ৯৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তাঁদের মধ্যে শুধু সৌদি আরবেই মারা গেছেন ৩৫৫ জন।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে সৌদি আরব, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত ও কাতারের বাংলাদেশ মিশন এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত দুই সপ্তাহে সেখানে নিহত ও সংক্রমিত লোকের সংখ্যা বেড়েছে। বিশেষ করে বাংলাদেশি অভিবাসী অধ্যুষিত দেশগুলোতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে লোকজন যেমন সুস্থ হচ্ছেন, আবার নতুন করে আক্রান্তের ঘটনা অব্যাহত রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে কূটনীতিক ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের কাছ থেকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের পর থেকে দু–এক দিন ছাড়া প্রায় প্রতিদিন বাংলাদেশের লোকজন মারা গেছেন আর আক্রান্ত হয়েছেন। গত ১০ দিনে সেখানে নতুন করে কোনো বাংলাদেশির মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

আজ পর্যন্ত ১৮ দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণে মারা গেছেন ১ হাজার ৯৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে সৌদি আরবে ৩৫৫ জন, যুক্তরাজ্যে প্রায় ৩০৫, যুক্তরাষ্ট্রে ২৭২, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৫০, কুয়েতে ৪০, ইতালিতে ১৪, কাতারে ১৩ জন; কানাডা ও বাহরাইনে ৯ জন করে, সুইডেনে ৮, ফ্রান্সে ৭, স্পেনে ৫ এবং মালদ্বীপ, পর্তুগাল, কেনিয়া, লিবিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও গাম্বিয়ায় ১ জন করে বাংলাদেশি মারা গেছেন।

আজ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন সিঙ্গাপুরে। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২৬ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এ ছাড়া সৌদি আরবে ১৪ হাজার, কাতারে প্রায় ৪ হাজার, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৪ হাজার, কুয়েতে ১ হাজার, বাহরাইনে ৭০০, ইতালিতে ২৫০ এবং স্পেনে ২০০ জন বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য বাদ দিয়ে এই আট দেশে আজ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশির সংখ্যা ৪৯ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। তবে সিঙ্গাপুরে বিপুল সংখ্যায় বাংলাদেশি আক্রান্ত হলেও তাঁদের বড় অংশটি সুস্থ হয়ে গেছে বা সুস্থ হওয়ার পথে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0