পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হয় গত ২৫ জুন৷ এর আগে ২৩ জুন একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ জানায়, পদ্মা সেতুতে যানবাহন দাঁড় করানো, সেতুর ওপর হাঁটাচলা করা বা ছবি তোলা যাবে না৷ তবে সেতুর উদ্বোধনের পরই অনেক মানুষ সেতুর ওপর উঠে ছবি ও ভিডিও করতে থাকলে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়৷ এমন প্রেক্ষাপটে ২৬ জুন আরেক বিজ্ঞপ্তিতে আগের গণবিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা নিয়মকানুনগুলো স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়৷ এরপর থেকে আইনশৃকঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সেতুতে টহল দিচ্ছেন৷ কেউ নিয়ম ভাঙলেই গুনতে হচ্ছে জরিমানা৷

আজ শনিবার দুপুরে গাড়িতে করে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পথে পদ্মা সেতুতে নেমে অনুসারীদের নিয়ে সেলফি তোলেন তিনি৷ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সভাপতির অনুসারীদের শেয়ার করা সেলফিতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি রাকিব হোসেন ও তিলোত্তমা শিকদার, ত্রাণ ও দুর্যোগবিষয়ক সম্পাদক ইমরান জমাদ্দার, সাহিত্যবিষয়ক উপসম্পাদক এস এম রিয়াদ হাসান এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপসম্পাদক সামাদ আজাদ, ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি ইব্রাহিম হোসেনসহ বেশ কয়েকজনকে দেখা গেছে৷ ছাত্রলীগ সভাপতিসহ তাঁদের সবারই গ্রামের বাড়ি বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন জেলায়৷ নিয়ম ভাঙলেও তাঁদের কোনো জরিমানা গুনতে হয়নি৷

পদ্মা সেতুর ওপর সেলফিতে ছাত্রলীগের সভাপতির সঙ্গে থাকা সহসভাপতি রাকিব হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, 'প্রথমবারের মতো পদ্মা সেতু পার হলাম৷ আমাদের অনুভূতিটাই ছিল অন্য রকম! মূলত এ কারণেই ছবি তোলা হয়েছে৷ তবে সরকারঘোষিত বিধিনিষেধ আমাদের জানা ও মানা উচিত ছিল৷ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়েই আমরা সেতুতে দাঁড়িয়ে ছবি তুলেছি৷'

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন