default-image

বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, চলচ্চিত্র জীবনের কথা বলে। চলচ্চিত্র মানুষকে হাসায়-কাঁদায়। চলচ্চিত্র সমসাময়িক কালকে সংরক্ষণ করে। এই চলচ্চিত্র দুই দেশের বন্ধুত্বের বন্ধন আরও দৃঢ় করতে পারে। আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় পশ্চিমবঙ্গে কলকাতার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নন্দনে ‘তৃতীয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বঙ্গবন্ধুর গড়া চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে প্রাণের সঞ্চার করে। এগিয়ে যায় বাংলা চলচ্চিত্র। সেই ধারাবাহিকতা এখনো চলছে। বাংলা চলচ্চিত্রে সুদিন ফিরে আসছে। আমাদের ভ্রাতৃপ্রতিম দুই দেশ আজ যৌথ প্রযোজনায় ছবি নির্মাণ করছে। বিনিময় হচ্ছে আমাদের দুই দেশের ছবি। এটা আমাদের দুই দেশের গর্বের বিষয়।’

বিজ্ঞাপন


তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দেশ স্বাধীন হওয়ার পর আমরা এগিয়ে চলেছিলাম আমাদের সংস্কৃতির উন্নয়নের ধারাকে সঙ্গে নিয়ে। কিন্তু পঁচাত্তর সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে স্থবিরতা নেমে এসেছিল। আমরা সেই অধ্যায়কে কাটিয়ে ফের বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে আঁকড়ে ধরে চলচ্চিত্র উন্নয়নের পতাকা সমুন্নত রেখেছি। বেড়েছে আমাদের দুই বাংলার মধ্যে চলচ্চিত্র এবং সংস্কৃতি আদান-প্রদানের ধারা।’


উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন ভারতের পররাষ্ট্রসচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা, পশ্চিমবঙ্গের বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও জৈবপ্রযুক্তিমন্ত্রী ব্রাত্য বসু, ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোহাম্মদ ইমরান, প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক গৌতম ঘোষ, কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশের উপহাইকমিশনার তৌফিক হাসান প্রমুখ। এ ছাড়া অভিনয়শিল্পী জয়া আহসান, রিয়াজ, মিথিলা, সৃজিতসহ দুই বাংলার তারকারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

চিত্রকর্ম প্রদর্শনী

এর আগে বিকেলে কলকাতার একাডেমি অব ফাইন আর্টসে ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক চিত্রকর্ম প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। প্রদর্শনীতে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে নিয়ে ঐতিহাসিক ১০০টি চিত্রকর্ম ঠাঁই পেয়েছে।

default-image

এবারের পাঁচ দিনের এই চলচ্চিত্র উৎসবে রয়েছে বাংলাদেশের ২৮টি ছবি। আজকের এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী ছবি হিসেবে দেখানো হয় ‘হাসিনা এ ডটার’স টেল’। এ ছাড়া অন্য ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘ন ডরাই’, ‘আয়নাবাজি’, ‘জন্মসাথী’, ‘কৃষ্ণপক্ষ দুপুর’, ‘জালালের গল্প’, ‘দেবী’, ‘মায়া দ্য লস্ট মাদার’, ‘বাপজানের বায়োস্কাপ’, ‘রাজাধিরাজ রাজ্জাক’, ‘একাত্তরের গণহত্যা ও বধ্যভূমি’, ‘কাঙ্গাল হরিনাথ’, ‘আবার বসন্ত’, ‘ছুঁয়ে দিল মন’, ‘হীরালাল সেন’, ‘অজ্ঞাতনামা’, ‘সত্তা’, ‘মুসাফির’, ‘শাটল ট্রেন’, ‘ইতি তোমারই ঢাকা’, ‘আন্ডার কনস্ট্রাকশন’, ‘পদ্মপাতার জল’, ‘ইন্দুবালা’, ‘আঁখি ও তার বন্ধুরা’, ‘অন্তর জ্বালা’, ‘ফাগুন হাওয়ায়’, ‘ইসমাইলের মা’ ও ‘কাঠবিড়ালী’।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন