বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বেলা ১১টার দিকে যোগাযোগ করলে কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, সাধারণত সীমান্তের এপারে হতাহতের ঘটনা ঘটলে বিজিবির পক্ষ থেকে পুলিশকে অবহিত করা হয়। এর মধ্যে নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য তাৎক্ষণিক পুলিশে হস্তান্তর করা হয়। দুজনের মরদেহ প্রায় ২৪ ঘণ্টা ভারত সীমান্ত অংশে পড়ে থাকায় ওই সময়ের মধ্যে বিজিবি পুলিশকে কিছু অবহিত করেনি। লাশের ময়নাতদন্ত ভারতে হলে লাশ হস্তান্তরে এক সপ্তাহের বেশি সময় লাগতে পারে।

বিজিবির সুরইঘাট ক্যাম্প ও কানাইঘাট থানা-পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কানাইঘাটের লক্ষ্মীপ্রসাদ গ্রামের আসকর আলী ওরফে আছই (২৫) ও আরিফ মিয়াকে (২২) গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে ডোনা সীমান্ত এলাকার ভারত সীমান্ত অংশে অবস্থানকালে বিএসএফের গুলিতে মারা যান। দুজনের বাড়ি কানাইঘাটের লক্ষ্মীপ্রসাদ ইউপির এরালিগুল গ্রামে। তাঁদের গ্রামের কয়েক বাসিন্দা জানান, আসকর ও আরিফ মঙ্গলবার রাতে ডোনা সীমান্ত এলাকায় গিয়ে আর ফেরেননি। বুধবার সকালে কিছু লোক তাঁদের জানিয়েছেন, ওপারে বিএসএফের গুলিতে দুজন নিহত হয়েছেন।

আরিফের পরিবারের একজন আত্মীয় বলেন, লালবাজারে যাওয়ার কথা বলে বিকেলে তাঁরা বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন। ডোনা সীমান্ত এলাকার কিছু মানুষের কাছ থেকে তাঁরা শুনেছেন আসকর ও আরিফ ভারতের মেঘালয় রাজ্যের উখিয়াং এলাকায় অনুপ্রবেশ করেছিলেন। এ সময় তাঁদের ওপর গুলি করে বিএসএফ। ঘটনাস্থলেই দুজন মারা গেলে তাঁদের লাশ সীমান্তের ১৩৩১ মেইন পিলারের পাশে ফেলে রাখা হয়। সেখানে ফেলে রাখা অবস্থায় মুঠোফোনে লাশের ছবি দেখে পরিচয় শনাক্ত করেন। বিজিবির স্থানীয় ক্যাম্প কোনো তথ্য না দেওয়ায় লাশ পেতে তাঁরা পুলিশে যোগাযোগ রাখছেন।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন