বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ছেলের কৃতিত্বের সাক্ষী হতে রংপুর থেকে তাঁর বাবা মোজাফ্ফর হোসেন ও মা মুক্তা বেগমও এসেছিলেন অনুষ্ঠানে। সিফাত জানালেন, তিনি এমবিবিএস পরীক্ষায় সম্মিলিতভাবে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন। সেই ২০০৮ সাল থেকে নিয়মিত প্রথম আলো পড়ছেন। তবে কুইজের জন্য যেভাবে প্রতিদিন পুরো পত্রিকা খুঁটিয়ে পড়েছেন, তা ছিল এক অন্য রকম অভিজ্ঞতা।

কুইজের পুরস্কার বিতরণ ও চরকি উৎসবের মাধ্যমে গতকাল তারা ঝলমলে সমাপনী হলো প্রথম আলোর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় জাদুঘরে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালার। সেখানে ১৩ নভেম্বর শুরু হয়েছিল ‘আলোয় আঁধারে’ নামে প্রথম আলোর যাত্রাপথ নিয়ে বিশেষ প্রদর্শনী। ছাপা পত্রিকা আর ডিজিটাল মাধ্যম হয়ে প্রথম আলো যে বৃহৎ গণমাধ্যমে পরিণত হয়েছে, তা এ প্রদর্শনীতে তুলে ধরেছিলেন শিল্পী ওয়াকিলুর রহমান। পাশাপাশি প্রতিদিনই বিশেষ আয়োজন ছিল। গতকাল ছিল পাঠকদের কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার বিতরণী এবং ভিডিও স্ট্রিমিং মাধ্যম চরকির কার্যক্রম নিয়ে ‘চরকি উৎসব’।

এ উপলক্ষে জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী প্রদর্শনকক্ষে গতকাল বিকেল থেকেই শুরু হয়েছিল সংগীত ও অভিনয়জগতের তারকাদের উপস্থিতি। সঙ্গে প্রথম আলোর কুইজ জয়ী পাঠক ও সাধারণ দর্শকদের সমাবেশ। গান, অভিনয়ের অভিজ্ঞতা, প্রশ্নোত্তর আর পুরস্কার বিতরণী দিয়ে আনন্দঘন হয়ে উঠেছিল শেষ দিনের আয়োজন।

অনলাইনে সারা দেশের পাঠকদের নিয়ে প্রথম আলোর কুইজ প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছিল প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিন ৪ নভেম্বর। ধাপে ধাপে প্রতিযোগিতার পর চূড়ান্ত পর্ব হয়েছে প্রথম আলো কার্যালয়ে, গত বুধবার। এ পর্বের সূত্রধর ছিলেন প্রথম আলোর বিশেষ কার্যক্রম সমন্বয়ক সাইদুজ্জামান রওশন। সঞ্চালনা করেন প্রথম আলোর যুব কার্যক্রমের সমন্বয়ক মুনির হাসান। তিনি জানান, প্রায় ৪৫ হাজার পাঠক কুইজে অংশ নিয়েছিলেন। প্রতিদিন ১০ জন সেরা বিজয়ীকে পুরস্কার দেওয়া হয়। এভাবে সেরাদের নিয়ে পর্যায়ক্রমে দুটি সেমিফাইনাল এবং শেষে ফাইনাল পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

‘রোজ প্রথম আলো পড়ি’

কুইজে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার রাজগ্রামের মাসুদ রেজা। পেয়েছেন ১ লাখ ২০ হাজার টাকার পুরস্কার। তিনি জানালেন, তাঁদের গ্রামে কোনো পত্রিকাই যেত না। শহরে এসে পত্রিকা পড়া শুরু। প্রথম আলো তাঁর সবচেয়ে ভালো লাগে।

তৃতীয় হয়ে ৮০ হাজার টাকার পুরস্কার পেয়েছেন কুমিল্লার দেবীদ্বারের তরুণ ব্যাংক কর্মকর্তা নূরুল আমিন। তিনি প্রতিক্রিয়ায় বলেন, তিনি রোজ প্রথম আলো পড়েন। সকালে প্রথম আলো না পড়লে তাঁর মনে হয় দিনের কিছু যেন অপূর্ণ থেকে গেল।

নূরুল আমিন আরও বলেন, কুইজের জন্য পড়ায় আলাদা মনোযোগ দিতে হয়েছে। এতে পত্রিকা পড়া আরও আনন্দময় হয়ে উঠেছিল।

পাঠকের কুইজ প্রতিযোগিতায় সেরা দশের মধ্যে অন্য সাতজন হলেন মমিজি আরজমীর, মাতৃকা আরজমীর, ফাতিমা সুলতানা, রজত শুভ্র কুণ্ডু, কাশফি মাহজাবিন, সরকার মাহমুদ দেলওয়ার হোসাইন এবং এ কে এম নাজমুল হাসান।

বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দিয়ে প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক বলেন, প্রথম আলোর কাজ মানুষকে আলোকিত করা। মানুষ আলোকিত হলে দেশ আলোকিত হবে। প্রথম আলোর চাওয়া সর্বক্ষেত্রে বাংলাদেশর জয়। দেশের মানুষের এ জয়যাত্রায় প্রথম আলোও সঙ্গে থাকবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন