বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওসি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে পুলিশ সংরাইশ বড় পুকুরপাড় এলাকার সীমানাপ্রাচীরঘেরা একটি স্থান থেকে অস্ত্রগুলো উদ্ধার করে। ধারণা করা হচ্ছে, কাউন্সিলর সোহেল হত্যাকাণ্ডে এগুলো ব্যবহার করা হয়েছে।

এদিকে আজ বেলা আড়াইটায় নগরের পাথুরিয়াপাড়া ঈদগাহ মাঠে কাউন্সিলর সোহেলের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেন। এ সময় বক্তব্য দেন কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. মনিরুল হক, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ও সোহেলের ছেলে হাফেজ সৈয়দ মো. হাফিজুল ইসলাম। পরে সোহেলের মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

ওসি জানান, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। রাতে মামলা করবেন পরিবারের সদস্যরা।

গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে চারটায় কুমিল্লা নগরের পাথুরিয়াপাড়া থ্রি স্টার এন্টারপ্রাইজ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর মো. সোহেল ও তাঁর সহযোগী হরিপদ সাহাকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আরও চারজন গুলিবিদ্ধ হন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন