default-image

পুরান ঢাকার লালবাগ কেল্লার দেয়াল ঘেঁষে (দক্ষিণ-পশ্চিম পাশে) আবার অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে লেগুনা স্ট্যান্ড। এতে লেগুনার ধাক্কায় প্রতিনিয়ত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কেল্লার দেয়াল। এ ছাড়া দেয়ালে পেরেক মেরে লাগানো হয়েছে ব্যানার-পোস্টার।
স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, কেল্লার ওই পাশের দেয়াল রক্ষায় লোহার বেড়া (গ্রিল) দিয়েছিল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। কিন্তু প্রতিনিয়ত লেগুনার ধাক্কায় তা ভেঙে গেছে। বিভিন্ন স্থানে কেল্লার দেয়ালও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। যেকোনো সময় তা ধসে পড়ার আশঙ্কাও আছে। দ্রুত লেগুনাস্ট্যান্ড উচ্ছেদ ও ব্যানার-পোস্টার অপসারণ করা উচিত বলে মত দেন তাঁরা।
এই এলাকাটি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের আওতাধীন। গত বছরের ৯ ডিসেম্বর ‘লেগুনার ধাক্কায় ক্ষতিগ্রস্ত লালবাগ কেল্লার দেয়াল’ শিরোনামে প্রথম আলোয় একটি প্রতিবেদন ছাপানো হয়েছিল। তখন এই স্ট্যান্ডটি উচ্ছেদ করা হয়।জানতে চাইলে ডিএসসিসির ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দেলোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, এই স্ট্যান্ডটির কারণে কেল্লার দেয়ালটি হুমকির মুখে রয়েছে। বড় ধরনের ধাক্কা লাগলে যেকোনো সময় তা ধসে পড়তে পারে। এ ছাড়া এই স্ট্যান্ডের কারণে আশপাশের সব সড়কে যানজট লেগে থাকে। এতে মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে। শিগগিরই স্ট্যান্ডটি উচ্ছেদ করতে ডিএসসিসিকে অনুরোধ করা হবে। 

default-image

গতকাল রোববার সরেজমিনে দেখা যায়, লালবাগের কাজী রিয়াজ উদ্দিন সড়কে কেল্লার দেয়াল ঘেঁষে রাখা হয়েছে প্রায় ৩৫টি লেগুনা ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা। কেল্লার দেয়াল থেকে ১০ ইঞ্চি দূরত্বে আছে প্রায় আড়াই ফুট উঁচু লোহার বেড়া। লেগুনার ধাক্কায় এই বেষ্টনী ভেঙে দেয়ালের সঙ্গে লেগে গেছে। কয়েকটি স্থানে পলেস্তারা খসে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।
এ ছাড়া কেল্লার দেয়ালে পেরেক মেড়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ব্যানার ও পোস্টার লাগানো রয়েছে। দেয়ালে লাগানো একটি নোটিশে লেখা, ‘পুরাকীর্তি জাতীয় সম্পদ, এর রক্ষণাবেক্ষণ করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।’
কাজী রিয়াজ উদ্দিন রোডের বাসিন্দা জামাল হোসেন বলেন, গত বছর এই লেগুনাস্ট্যান্ডটি উচ্ছেদ করা হয়েছিল। কিন্তু কয়েক দিন পরই আবার স্ট্যান্ড গড়ে ওঠে। অবিলম্বে এটি স্থায়ীভাবে উচ্ছেদ করতে হবে।
স্থানীয় বাসিন্দারা ও কয়েকজন লেগুনাচালক জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরে ওই সড়কে কেল্লার দেয়াল ঘেঁষে ছিল ডিএসসিসির পৃথক দুটি ডাস্টবিন। তিন বছর আগে কেল্লার পরিবেশ সুন্দর রাখতে ডাস্টবিনটি সরিয়ে নেয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সেই জায়গা দখল করে লেগুনাগুলো কেল্লার দেয়াল ঘেঁষে রাখা শুরু হয়। পর্যায়ক্রমে অটোরিকশা স্ট্যান্ডও গড়ে ওঠে। এসব লেগুনা ও অটোরিকশা থেকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক নেতা নিয়মিত চাঁদা আদায় করেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন