বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ পর্যায়ে বিরোধী দলের একজন সদস্য কিছু একটা বলেন। জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ঠিক আছে, প্লিজ, কাম উইথ আ লিস্ট।’
এ সময় বিরোধী দল থেকে কিছু একটা বলা হলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আরে, আবার এক কথা! আমি তো বলছি, আমি কোথায় পাব? আপনি আমাকে বলেন। আচ্ছা ঠিক আছে, অলরাইট, আমি দেখব।’
আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, ‘একটি দেশের অর্থনীতির মূল চালক হলো সে দেশের ব্যাংকিং খাত। সারা বিশ্বের অর্থনীতি যখন টালমাটাল অবস্থা, সবাই কিন্তু বলছেন, তখন আমরা ভালো করছি। আপনার কাছে যদি কোনো প্রমাণ থাকে, বাংলাদেশের অর্থনীতি আমাদের আশেপাশের প্রতিবেশী দেশ, সাউথ এশিয়া, সাউথইস্ট এশিয়া, কোনো দেশের চাইতে যদি মনে করেন বা প্রমাণ থাকে যে আমরা তাদের চাইতে অর্থনৈতিক এলাকায় পেছনে আছি, তাহলে ইন দ্যাট কেস ইউ কাম টু মি, আই উইল গেট ইউ টু দ্য সলিউশন। অবশ্যই আমি দায়িত্ব নিয়ে সে কাজটি করব।’

সাংসদদের বক্তব্যে অনেকটা ক্ষোভ প্রকাশ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতি এখন একটি চ্যালেঞ্জিং সময় অতিক্রম করছে। সারা বিশ্বের অর্থনীতি ৩ শতাংশ কনট্রাকশন হয়েছে। কিন্তু দেশে এটি হয়নি। বলা হচ্ছে, ২০৩৫ সালে বাংলাদেশের অর্থনীতির পরিমাণ হবে সারা বিশ্বে ২৫তম। অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এই যে অর্জনগুলা, আপনারা যেভাবে বলেন, মনে হয় যেন দেশে কোনো অর্থনীতি নাই, দেশে কোনো ব্যাংকিং খাত নাই, দেশে কিছুই নাই। কিন্তু কিছুই যদি না থাকবে, এগুলো বাদ দিয়ে আমরা উন্নতি করছি কীভাবে? এগুলো বাদ দিয়ে আমাদের প্রবৃদ্ধি আসছে কীভাবে?’

সাংসদেরা প্রশ্ন করলে প্রশ্নোত্তর পর্বে সব জবাব দেবেন মন্তব্য করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘মনের মতো করে আপনারা প্রশ্ন করবেন। আমি প্রত্যেকটা প্রশ্নের জবাব দেব। আমি প্রশ্নের জবাব দেব সেদিন, যেদিন আপনারা প্রশ্ন করবেন।’
অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ব্যাংকের সংখ্যা বেড়েছে, গ্রাহক বেড়েছে, আমানত বেড়েছে। অর্থমন্ত্রী দাবি করেন, খেলাপি ঋণের পরিমাণ দেশসৃষ্টির পর থেকে সবচেয়ে কম এখন। ২০০৬ সালে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ১৩ দশমিক ১৫ শতাংশ। এখন সেপ্টেম্বর কোয়ার্টার পর্যন্ত ১ লাখ ১ হাজার ১৫০ কোটি টাকা। এটা ৮ দশশিক ১২ শতাংশ। সবচেয়ে নিম্নে আছে এখন। প্রত্যেকটা ব্যাংক লাভে আছে। ঋণ নিয়ে যারা অনিয়ম করেছে, তাদের বিরুদ্ধে মামলা–মোকদ্দমা করা হয়। ই–কমার্সের বিরুদ্ধেও মামলা করা হয়েছে। চলমান মামলার সংখ্যা ২ লাখ ৪৩ হাজার।

এর আগে বিলটি জনমত যাচাই ও বাছাই কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব দিয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সাংসদ মুজিবুল হক বলেন, খেলাপি ঋণের পরিমাণ এক লাখ কোটি টাকার বেশি। কানাডাসহ বিভিন্ন দেশে রাজনীতিবিদ, আমলাসহ অনেকে টাকা পাচার করেছেন বলে অভিযোগ আছে। তাঁরা বারবার অনুরোধ করেছেন, এটা নিয়ে তদন্ত হোক। কারণ, এই অভিযোগে আমলা, রাজনীতিবিদদের বদনাম হয়। টাকা পাচার হয় কি না, হলে কারা করে, এটা বের করতে তিনি ব্যাংক কমিশন গঠন করে তদন্ত করার দাবি জানান। তিনি বলেন, আমলা, রাজনীতিবিদের স্বার্থে এটা হওয়া উচিত।
বিএনপির হারুনুর রশীদ বলেন, অর্থমন্ত্রীকে আমরা অনেক প্রশ্ন করি, তিনি কোনো উত্তর দেন না। ঠান্ডা মাথায় এড়িয়ে যান। তিনি বলেন, ই–কমার্সের নামে লুটপাট হচ্ছে। হাজার হাজার কোটি টাকা জনগণের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। অথর্মন্ত্রী বলছেন, দায় তাঁর নয়। বাণিজ্যমন্ত্রী বলছেন, দায় তাঁর নয়। তাহলে কে দায় নেবে?

বিএনপির সাংসদ মোশাররফ হোসেন বলেন, রাঘববোয়ালেরা হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে মেরে দিয়ে আয়েশি জীবন যাপন করছে। গরিব মানুষ ঋণ পান না। কৃষকের অল্প টাকা ঋণখেলাপির জন্য বারবার তাঁর বাড়িতে যাওয়া হয়। হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করছে যারা, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।
জাতীয় পার্টির সাংসদ রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, অর্থমন্ত্রী দক্ষ, জ্ঞান রাখেন, সহনশীল সব কিছু করেন। কিন্তু ব্যাংকের অনিয়ম, দুর্নীতি, পাচার হলে কত টাকা পাচার হয়েছে, এসব বিষয়ে জানানো উচিত। এ জন্য তিনিও একটি ব্যাংক কমিশন গঠনের দাবি জানান।
এসব বক্তব্যের জবাবে অর্থমন্ত্রী ছিলেন নির্বিকার। বিরোধী সাংসদদের বক্তব্যের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, যেহেতু বিলটি স্থায়ী কমিটিতে প্রেরিত হয়েছিল সেখানে এটি পরীক্ষা করেছে। তাই তিনি যাচাই–বাছাই কমিটিতে প্রেরণের প্রয়োজন আছে বলে মনে করেন না। এটুকু বলেই তিনি বক্তব্য শেষ করেন।

এরপর সংশোধনী প্রস্তাব তুলতে গিয়ে বিএনপির সাংসদ হারুনুর রশীদ বলেন, এক লাখ কোটি টাকা ঋণখেলাপি, উত্তর দিলেন না অর্থমন্ত্রী। হাজার হাজার কোটি টাকা চলে গেল। দায় কে নেবে? এসব বিষয় জানাতে হবে। আশ্বস্ত করতে হবে। হারুন বলেন, অর্থমন্ত্রী কথা কম বলেন, এটা ভালো। কিন্তু টু দ্য পয়েন্ট উত্তর দিতে হবে।
বিএনপির সাংসদ রুমিন ফারহানা বলেন, ‘উনি (অর্থমন্ত্রী) কথা কম বলেন। বললে ভুল হবে। উনি কথা বলেনই না প্রায়।’
রুমিন বলেন, কাগজে–কালমে মন্দ ঋণ এক লাখ কোটি টাকার মতো। বিশেষজ্ঞরা বলেন, কার্পেটের নিচে লুকিয়ে রাখা ঋণ হিসাব করলে সেটা আসলে মোট চার–সাড়ে চার লাখ কোটি টাকা। তিনি বলেন, রাজনীতিবিদ, আমলারা টাকা পাচার করেন, এমন শোনা যায়। কারা কত পাচার করেন অর্থমন্ত্রী যদি পরিষ্কার চিত্র দেন, তাহলে রাজনীতিবিদ ও সৎ আমলারা মুক্ত থাকতে পারেন।
অর্থমন্ত্রীর উদ্দেশে জাতীয় পার্টির সাংসদ রওশন আরা মান্নান বলেন, কথা কম বলা ভালো। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে কথা বলতে হয়। অর্থমন্ত্রী যদি মাঝেমধ্যে খুলে বলেন ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিচ্ছেন, তা হলে মানুষ জানতে পারে। না হলে মানুষের মধ্যে সন্দেহ তৈরি হয়। বিদেশে টাকা পাচার হয়, কী ব্যবস্থা নিয়েছেন অর্থমন্ত্রী যদি বলেন, তাহলে মানুষ একটু শান্তি পায়।
পরে সংশোধনী প্রস্তাবের বিষয়ে সদস্যদের বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী নিজের মুখ খোলেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন