দেশে গণতন্ত্র নেই বলে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বিরোধী দল। অথচ আমরা গবেষণা করে দেখেছি, বাংলাদেশে সুস্থ গণতন্ত্রের চর্চা চলছে অনেক আগে থেকেই। বিশ্বাস হলো না? তাহলে নিচের লেখাটি পড়ুন।

কেবল বাংলাদেশের নাগরিক বলেই আপনি যদি চান, এ মুহূর্তে ব্যস্ত সড়কের সব গাড়ি থামিয়ে রাস্তা পার হবেন, তাহলে সেটাই হবে। এমনিতে ট্রাফিক পুলিশ নির্দিষ্ট সময় পর পর লাল আলো জ্বালিয়ে গাড়ি থামান। কিন্তু রাস্তায় নামলেই দেখা যায়, আপনি, আমি, আমরা নিজেরাই দল বেঁধে হাত দেখিয়ে থামিয়ে দিই চলন্ত গাড়িঘোড়া! তার মানে, আপনি রাস্তা পার হলে সেটাই ট্রাফিক সিগন্যাল।


কেবল এই দেশের নাগরিক বলেই আপনার কথাই শেষ কথা। রাস্তায় যানজট দেখলেই রং সাইড দিয়ে গাড়ি চালিয়ে যাওয়ার পূর্ণ অধিকার আপনি রাখেন। এমনকি মোটরসাইকেল থাকলে সেটা ফুটপাত দিয়েও চালাতে পারেন। দেশটা তো আমাদের, ফুটপাতও আমাদের!


কেবল আপনি বাংলাদেশের নাগরিক বলেই আপনার সিদ্ধান্তের ওপর কোনো সিদ্ধান্ত নেই। আপনি যদি চান ব্যস্ত রাস্তার পাশের ফুটপাতে প্রাকৃতিক কর্ম সারবেন, তবে সেটাই হবে। সরকার কিংবা প্রশাসন কিছুই করতে পারবে না।


বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে আপনার ক্ষমতা এত প্রবল যে শহরের যেকোনো জায়গায় যেকোনো সময় আপনি হাত দেখালেই বাস সেখানে দাঁড়িয়ে পড়তে বাধ্য! আপনি যেখানেই বাস থামাতে বলবেন, চালক সেখানেই বাস থামিয়ে আপনাকে নামিয়ে দেবে। বাসস্ট্যান্ডের ধার বাংলার জনগণ ধারে না!
অতএব গণতন্ত্র নিয়ে আন্দোলন বাদ দেওয়া উচিত। যে দেশের মানুষ ইচ্ছা করলেই যেখানে–সেখানে প্রাকৃতিক কর্ম সারতে পারে, সে দেশে গণতন্ত্র নেই—এমন কথা অতি হাস্যকর নয় কি?

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন