default-image
বিজ্ঞাপন

দেশের অবকাঠামো উন্নয়নে সশস্ত্র বাহিনী গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনায় সশস্ত্র বাহিনীর ভূমিকার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, দেশের যেকোনো ক্রান্তিলগ্নে সর্বোচ্চ নিষ্ঠা ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। অতীতে যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগে উদ্ধার ও ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনায় দক্ষতা দেখিয়েছেন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা।

সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে আজ শনিবার রাতে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলায় সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশের প্রতিটি অঞ্চলে ‘লকডাউন কার্যক্রম’ বাস্তবায়ন করেছে। সাধারণ জনগণের মধ্যে মহামারি প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টি এবং বিদেশ থেকে আসা ব্যক্তিদের জন্য কোয়ারেন্টিন সেন্টার স্থাপন ও পরিচালনা করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, ঢাকার সমন্বিত করোনাভাইরাস চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে। করোনাকালে দুস্থ ও অসহায় মানুষের সাহায্যার্থে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নানাবিধ কার্যক্রমও অত্যন্ত প্রশংসা কুড়িয়েছে।

বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে চিকিৎসাসামগ্রী নিয়ে মালদ্বীপে নৌবাহিনীর জাহাজ পাঠানোর কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা এবং দুস্থ ও অসহায় পরিবারদের মানবিক সহায়তা প্রদানে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। এ ছাড়া জাতিসংঘে নিয়োজিত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’ লেবাননের বৈরুতে বসবাসরত বাংলাদেশি পরিবারগুলোর মধ্যে খাদ্য ও ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করে।

বিজ্ঞাপন

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে করোনায় আক্রান্ত জনপ্রতিনিধি, চিকিৎসক, শিক্ষক, বিশিষ্টজনসহ অনেক রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টার ঢাকায় স্থানান্তর করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আটকে পড়া দেশি-বিদেশি নাগরিকদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের জন্য বাংলাদেশ বিমানবাহিনী ১৭টি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে। এ ছাড়া মালদ্বীপে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের করোনা চিকিৎসাসেবা প্রদানের জন্য বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর একটি মেডিকেল টিম মালদ্বীপে পাঠানো এবং লেবাননে সংঘটিত ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর সেখানে মানবিক কার্যক্রম পরিচালনা করে বিমানবাহিনী।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলা করতে গিয়ে সশস্ত্র বাহিনীর উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন এবং বেশ কয়েকজন মৃত্যুবরণ করছেন। যাঁরা অসুস্থ, তাঁদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন তিনি।

মন্তব্য পড়ুন 0