বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রস্তাবিত আইনানুযায়ী, খাদ্যদ্রব্যের সঙ্গে অতিরিক্ত ক্ষতিকর কিছু মিশিয়ে উৎপাদন করা, নির্দিষ্ট সময়ের বেশি মজুত করা, কর্মসূচির নামাঙ্কিত বা বিতরণকৃত এমন চিহ্ন যুক্ত ছাড়া সরকারি খাদ্যগুদাম থেকে খাদ্যশস্য ভর্তি বস্তা গ্রহণ, স্থানান্তর, মজুত করা, হাত বদল বা পুনরায় বিক্রি করা ইত্যাদি অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে।

সরকারি কোনো কর্মসূচির আওতায় নির্ধারিত পরিমাণের চেয়ে কম বিতরণ করা, সরকারি খাদ্য সামগ্রী বিক্রি বা বিতরণের জন্য বিএসটিআই নির্ধারিত বাটখারা বা মাপ ব্যবহার না করে হেরফের করলেও শাস্তি পেতে হবে।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে যত্রতত্র ও অপরিকল্পিতভাবে শিল্প স্থাপন যাতে না হয় সে বিষয়ে যৌথভাবে একটি ধারণাপত্র তৈরি করতে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার বিভাগকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী তিন মাসের মধ্যে সুপারিশসহ এই ধারণাপত্র মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করতে বলা হয়েছে।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে আটিয়া বন (সংরক্ষণ) আইন উপস্থাপন করা হলেও সেটি অনুমোদন দেওয়া হয়নি। মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত দিয়েছে, টাঙ্গাইলে অবস্থিত ওই বনের জায়গার বিষয়ে একটি ডিজিটাল জরিপ করবে ভূমি মন্ত্রণালয়। আগামী চার-পাঁচ মাসের মধ্যে এই জরিপ শেষ করার পর এই আইনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার ৮৯ শতাংশ আজকের বৈঠকে মন্ত্রিসভার গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের চিত্র তুলে ধরা হয়। এ সংক্রান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তের ৮৯ শতাংশ বাস্তবায়িত হয়েছে। বাকি ১১ শতাংশ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নাধীন আছে। এই সময়ের মধ্যে মন্ত্রিসভায় মোট ৭৪৮টি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এর মধ্যে, ৬৬৬টি বাস্তবায়িত হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন