আর্মেনিয়া, রুয়ান্ডা, কম্বোডিয়া, সিয়েরা লিওন ও বসনিয়ার মতো বাংলাদেশের গণহত্যাকে বিশ্ব সংস্থার স্বীকৃতি আদায় করতে সর্বাত্মক উদ্যোগ নেওয়ার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বক্তারা। একই সঙ্গে বাংলাদেশের গণহত্যার স্মৃতিচিহ্ন ধরে রাখতে ‘গণহত্যা জাদুঘর’ করার প্রস্তাব দিয়েছেন তাঁরা। 

আজ রোববার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম আয়োজিত ‘গণহত্যা ১৯৭১: ইতিহাস ও দায়বদ্ধতা’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।
বাংলাদেশের গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে যা যা করণীয়, সবই করবে জানিয়ে সেমিনারে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশের গণহত্যার স্বীকৃতির জন্য আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অবশ্যই প্রচেষ্টা চালাবে। প্রয়োজনে তারা একটি আলাদা সেল গঠন করবে। এর জন্য যা কিছু করার দরকার প্রধানমন্ত্রী তা করবেন। এ ব্যাপারে সরকার পিছপা হবে না।’
জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সাধারণ সম্পাদক সাংসদ শিরীন আখতার বলেন, ‘বাংলাদেশের গণহত্যার স্মরণে ২৫ মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন করা হবে। এখন আমাদের প্রয়োজন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। এটা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য, মানবসভ্যতাকে এগিয়ে নিতে এটা করতে হবে। ‘গণহত্যাকে না বলো’ স্লোগানে সারা পৃথিবীকে মুখরিত করতে হবে।
গণহত্যা কখনো মুছে যায় না কিংবা তামাদি হয়ে যায় না উল্লেখ করে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক বলেন, ‘আজকে যখন আমরা জাতীয়ভাবে গণহত্যা দিবস পালন করব, তখন বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে বলতে হবে যে তোমার যে ব্যর্থতা ছিল, সেই ব্যর্থতা তোমাদের মোচন করতে হবে।’
সেমিনারে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের মহাসচিব হারুন হাবীব। তিনি বলেন, ‘কেবল গণহত্যা দিবস ঘোষণা বা পালন নয়, ২৫ মার্চের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিকে বেগবান করতে হবে। আর্মেনিয়া, রুয়ান্ডা, কম্বোডিয়া, সিয়েরা লিওন, বসনিয়ার মতো বাংলাদেশের গণহত্যাকে বিশ্ব সংস্থার স্বীকৃতি আদায় করতে হবে। সরকার ও সংশ্লিষ্ট সবার পক্ষ থেকে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে। আমাদের ব্যর্থ হওয়ার সুযোগ নেই।’
সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সহসভাপতি আনোয়ার-উল-আলম গণহত্যার স্মৃতিচিহ্ন ধরে রাখতে গণহত্যা জাদুঘর করার প্রস্তাব দেন। এ জন্য সরকারসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।
সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের চেয়ারম্যান কে এম সফিউল্লাহ সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন ফোরামের সহসভাপতি আবু ওসমান চৌধুরী, ম হামিদ, নুরুল আমিন, সাবেক রাষ্ট্রদূত রাজিউল হাসান, নৃত্যশিল্পী লায়লা হাসান প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন