default-image

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভোগড়া এলাকায় বকেয়া বেতন ও লে-অফ থাকা কারখানা খুলে দেওয়ার দাবিতে আজ সোমবার সকালে শ্রমিকেরা বিক্ষোভ করে। এ সময়ে উত্তেজিত শ্রমিকেরা তিনটি মোটরসাইকেল ও আটটি বাইসাইকেলে অগ্নিসংযোগ করে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে। পরে শিল্প পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

শিল্প পুলিশ ও শ্রমিকরা জানায়, ভোগড়া এলাকার স্টাইলিস গার্মেন্টস কারখানা কর্তৃপক্ষ এক মাস আগে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত কারখানা লে-অফ ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি দেয়। লে-অফ করার আগে ৩০ জন শ্রমিকের বেতন এবং ৮০ জন স্টাফের ৬০ শতাংশ বেতন বকেয়া ছিল। দুইদিন ধরে ওই কারখানার শ্রমিকেরা বন্ধ করে দেওয়া কারখানাটি দ্রুত খুলে দেওয়া এবং শ্রমিক-স্টাফদের বকেয়া বেতনের দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

দাবি পূরণ না হওয়ায় সোমবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে কারখানার সমানে জড়ো হয় শ্রমিকেরা। পরে তাঁরা আশপাশে থাকা ভলমন্ট ফ্যাশন, ক্রাউন ফ্যাশন, টেকনো ফাইবার নামের চলমান কারখানার শ্রমিকদের কাজ না করার আহ্বান জানায়। একপর্যায়ে ওইসব কারখানায় ইটপাটকেল ছুঁড়তে থাকে। এ সময় শ্রমিকেরা ক্রাউন ফ্যাশন কারখানার সামনে মহাসড়কের পাশে পার্কিং করা তিনটি মোটরসাইকেল ও ৮টি বাইসাইকেলে অগ্নিসংযোগ করে। প্রথমে তাঁদের মহাসড়ক ছেড়ে যেতে অনুরোধ জানালোও তাঁরা সাড়া দেয়নি। পরে কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করলে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

শ্রমিকদের আন্দোলনের কারণে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক সকাল সাড়ে ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। যার কারণে দুই পাশেই মালবাহী যান ও ব্যক্তিগত গাড়ির জট লেগে যায়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করলে বেলা ১১টার দিকে ফের যানবাহন চলাচল শুরু হয়।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার জানান, কারখানায় কাজ না থাকায় লে-অফ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এরপরও শ্রমিকেরা কারখনা খোলা ও কিছু শ্রমিকের বকেয়া বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ ও অগ্নিসংযোগ করে। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন