গোপন তথ্যের ভিত্তিতে খবর পেয়ে তাঁকে অক্সিজেন এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কাল বুধবার আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে। এর আগে এই মামলায় বাসের চালকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের তিন দিনের রিমান্ডে এনে গতকাল সোমবার থেকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

জানা গেছে, ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূ মারধরের একটি ঘটনায় মামলা করার বিষয়ে আলাপ করতে বায়েজিদ বোস্তামী এলাকায় এক স্বজনের বাসায় আসেন। গত রোববার দুপুরে স্বজনের বাসা থেকে বেরিয়ে আদালতে যাওয়ার জন্য অক্সিজেন মোড়ে আসেন তিনি। সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা বাসের চালককে চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় যাওয়ার কথা জানালে বাসচালক ওই গৃহবধূকে বাসে তুলে নেন। বাসে তখন অন্য কোনো যাত্রী ছিল না। পরে চালক ও এক সহকারী তাঁকে ধর্ষণ করেন।

পুলিশ জানায়, গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে গত রোববার রাতে চারজনের নামে মামলা করেন। ওই দিন রাতে পুলিশ জেলার হাটহাজারী ও ফটিকছড়িতে অভিযান চালিয়ে বাসটির চালক ও দুই সহকারীকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন বাসচালক নুরুল আলম, তাঁর সহকারী মোহাম্মদ রবিউল ও মো. শাহজাহান।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন