বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া চারজন হলেন—জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ান নিশান, তাঁর ভাই এহসান সুশান, বোনজামাই মোহাম্মদ হাসান শেখ ও আনিসুর রহমান। তাঁদের মধ্যে মোর্শেদায়ান পলাতক। অন্য তিনজনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বাদীপক্ষের আইনজীবী আবু আবদুল্লাহ ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, এক কোটি টাকা যৌতুকের জন্য গৃহবধূ জাকিয়াকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। মামলার প্রধান আসামি জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ান একটি বেসরকারি টেলিভিশনের গোপালগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ছিলেন।

প্রায় ছয় বছর আগে ২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি গোপালগঞ্জের সিলনা রোড বেদগ্রামে গৃহবধূ জাকিয়া মল্লিককে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ানসহ চারজনের বিরুদ্ধে গোপালগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা হয়।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, যৌতুকের দাবিতে ২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি রাতে গোপালগঞ্জের সিলনা রোড বেদগ্রামের বাড়িতে জাকিয়াকে নির্যাতন করা হয়। এ-সংক্রান্ত অভিযোগ পেয়ে পুলিশ জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ান নিশান, তাঁর ভাই এহসান সুশান, বোনজামাই মোহাম্মদ হাসান শেখ ও আনিসুর রহমানকে আটক করে। পরে জাকিয়াকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ২০১৬ সালের ৯ জুন আদালতে চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেন। একই বছরের ৭ সেপ্টেম্বর আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। মামলায় আদালতে ২০ সাক্ষী সাক্ষ্য দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর সৈয়দ শামসুল হক। আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন আইনজীবী মাহাবুব আহমেদ ও ফারুক আহমেদ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন