default-image

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় গৃহবধূ মর্জিনা আক্তারকে (৩৫) হত্যার দায়ে স্বামী ছমির উদ্দিনকে (৫৭) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৃতীয় আদালতের বিচারক প্রদীপ কুমার রায় দণ্ডাদেশ দেন।

রায় ঘোষণার সময় আদালতে আসামি ছমির উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। তিনি পাকুন্দিয়া পৌর এলাকার সৈয়দগাঁও পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত ইজ্জত আলীর ছেলে।

লেবাননফেরত ছিলেন মর্জিনা আক্তার। তিন সন্তানের জননী এই গৃহবধূ উপজেলার সৈয়দগাঁও গ্রামের নরুল ইসলামের মেয়ে এবং ছমির উদ্দিনের দ্বিতীয় স্ত্রী ছিলেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বিয়ের কিছুদিন পর চাকরির উদ্দেশে লেবাননে যান মর্জিনা আক্তার। পাঁচ বছর পর বিদেশ থেকে ফিরে এসে স্বামী ছমির উদ্দিনের কাছে টাকার হিসাব চান মর্জিনা। এ নিয়ে ২০১৭ সালের ১৪ জুলাই দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে মর্জিনাকে ছুরিকাঘাত করেন ছমির। পরে স্থানীয় ব্যক্তিরা তাঁকে উদ্ধার করে পাকুন্দিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় মর্জিনার বাবা নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে ছমির উদ্দিনকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পাকুন্দিয়া থানার উপপরিদর্শক হুমায়ুন কবির একই বছরের ২৪ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবদুছ ছালাম ও আসামিপক্ষের আইনজীবী জেসমিন আরা রোজী মামলাটি পরিচালনা করেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন