গোপালগঞ্জ ও পটুয়াখালীর বাউফলে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তাঁরা দুজনই গাড়িচালকের সহকারী (হেলপার) ছিলেন। গতকাল শনিবার সকালে দুর্ঘটনা দুটি ঘটে।
গোপালগঞ্জে নিহত ব্যক্তির নাম আকরাম খান (২৫)। তিনি খুলনার সোনাডাঙ্গা উপজেলার বয়রা গ্রামের মো. আসলাম খানের ছেলে। রূপসী পরিবহনের একটি বাসের চালকের সহকারী ছিলেন আকরাম।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, খুলনা থেকে মাদারীপুরে যাচ্ছিল রূপসী পরিবহনের বাসটি। সকাল ১০টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জ শহরতলির বেদগ্রাম মোড়ে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ইজিবাইকের ধাক্কায় বাসটির দরজায় ঝুলে থাকা আকরাম ছিটকে রাস্তায় পড়ে যান। এরপর বাসের পেছনের চাকায় পিষ্ট হন তিনি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
পটুয়াখালীর বাউফলে নিহত মো. সোহরাব হোসেন (৪৫) ছিলেন একটি ট্রলির চালকের সহকারী। তিনি উপজেলার আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের আতশখালী গ্রামের মো. আমজাদ হোসেন মৃধার ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, সকাল সাতটার দিকে উপজেলার কালাইয়া-লোহালিয়া সড়কের বদরঘাট এলাকায় একটি মোটরসাইকেলের সঙ্গে ট্রলির ধাক্কা লাগে। এতে ট্রলিটি পাশের খাদে পড়ে যায়। তখন ট্রলির নিচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান সোহরাব হোসেন। আহত হন ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলটির চালক জাহিদ ও তাঁর দুজন যাত্রী। তাঁদের বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
গোপালগঞ্জ ও বাউফল থানার পুলিশ ঘটনা দুটির সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন