চট্টগ্রামের বাঁশখালীর পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে জঙ্গি সন্দেহে গ্রেপ্তার পাঁচজনের বিরুদ্ধে রিমান্ড শুনানি আজ বুধবার। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বাঁশখালীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আমিনুল ইসলামের আদালতে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। পরে আদালত শুনানির এই দিন ধার্য করেন।
বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল হাছান প্রথম আলোকে বলেন, অস্ত্র মামলায় গ্রেপ্তার ওই পাঁচ জঙ্গিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে উদ্ধার হওয়া অস্ত্রের উৎস এবং তাঁদের প্রশিক্ষক কারা ছিলেন, কত দিন ধরে তাঁরা প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছেন ইত্যাদি বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। এ জন্য আদালতে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়।
বাঁশখালী আদালতের জিআরও সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আবদুল লতিফ জানান, আদালত রিমান্ড শুনানির দিন ধার্যের পর আসামিদের বাঁশখালী থানা-পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়।
গত শনিবার বিকেল থেকে রোববার ভোর পর্যন্ত উপজেলার দুর্গম লটমনি পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে জঙ্গি সন্দেহে ওই পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে র্যা পিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৭)। তাঁরা হলেন মোবাশ্বের হোসেন, আমিনুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, আমির হোসেন ও আবদুল খালেক। র‌্যাবের দাবি, পাহাড়ের পাদদেশে ড্রামের ভেতর অস্ত্র, গুলি ও প্রশিক্ষণের সরঞ্জামাদি মাটির নিচে লুকিয়ে রেখেছিল জঙ্গিরা। পরে তাঁদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী একে-২২ রাইফেলসহ প্রশিক্ষণের নানা সরঞ্জামাদি উদ্ধার করে র‌্যাব। এ ঘটনায় সোমবার রাতে র‌্যাব বাদী হয়ে বাঁশখালী থানায় অস্ত্র ও সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দুটি মামলা করে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন