default-image

স্বাস্থ্য খাতে ঘাটতি নয়, কতটুকু উন্নয়ন হয়েছে, তা দেখা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ‘গৌরবের ৫০ বছর’ শীর্ষক ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাহিদ মালেক বলেছেন, ‘স্বাস্থ্যসেবা বাংলাদেশে অনেক দূর এগিয়েছে। অনেক আলোচনা–সমালোচনা আছে। কী ঘাটতি আছে, সেগুলোর দিকে এখন আলোচনা না করে আমরা কত দূর উন্নয়ন করেছি, তা বেশি করে দেখা উচিত।’ ভবিষ্যতে স্বাস্থ্য খাতে কী কী করা যাবে, সেগুলোর দিকে সবাইকে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এসেছে। কেউ স্বাস্থ্যবিধি মানেনি, ইচ্ছেমতো ঘুরে বেড়িয়েছে। যদিও দ্বিতীয় ঢেউকে বাংলাদেশ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছে। তবে আত্মতুষ্টির জায়গা নেই। ভুল করলে আবারও বিপদে পড়তে হবে।
আলোচনা সভায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ বি এম খুরশীদ আলম ২ মে–কে স্বাস্থ্যসেবা ও কল্যাণ দিবস হিসেবে পালনের জন্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা চেয়েছেন। আলোচনার শুরুতে তিনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ইতিহাস তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের ২ মে ডা. তোফাজ্জল হোসেনকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

সভায় স্বাস্থ্য খাতে ৫০ বছরের নানান অর্জন তুলে ধরেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. নাসিমা সুলতানা। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত সময়কালে চিকিৎসকদের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডা. সারওয়ার আলী। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য খাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের এ খাতের বিভিন্ন পদে নিয়োগ দেওয়া হলে অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম দূর হবে। বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী মুক্তিযুদ্ধের সময়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গোড়াপত্তনের স্মৃতিচারণা করেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ বিভাগের পরিচালক মো. নাজমুল ইসলামের সঞ্চালনায় ভার্চ্যুয়াল এ সভায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। সভায় আরও বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ সচিব মো. আলী নূর, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি ইকবাল আর্সলান ও মহাসচিব এম এ আজিজ প্রমুখ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন