বিজ্ঞাপন

নিহতের বাবা আবদুস সালাম প্রথম আলোকে বলেন, প্রতিবেশী খোরশেদ আলমের সঙ্গে জায়গা নিয়ে তাঁর বিরোধ রয়েছে। জায়গা দখলের জন্য গত মঙ্গলবার রাত একটার দিকে একদল সন্ত্রাসী নিয়ে আসেন তাঁরা। স্থানীয় লোকজনসহ তাঁরা সন্ত্রাসীদের বাধা দেন। চলে যাওয়ার সময় বাড়ির পাশে থাকা তাঁর ছেলে আলমগীর হোসেনকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে তাঁকে সেখানে ছুরিকাঘাত করে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ছেলে হত্যার বিচার চান আবদুস সালাম।

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবদুল করিম প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা হলেন মো. সৈয়দ ও মাহবুবুর রহমান। জড়িত বাকি ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।
ময়নাতদন্তের জন্য লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন