চুরি ঠেকানোর ফাঁদে কৃষকের মৃত্যু

বিজ্ঞাপন
default-image

রাতে ধানের খড় (বিচালি) চুরি হবে, তাই বিদ্যুতের তার জড়িয়ে রেখেছিলেন গোটা পালায়। দিনের বেলা সেই পালা থেকে খড় নিতে গিয়েছিলেন কৃষক লাল মিয়া (২০)। তখনই বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে প্রাণ যায় তাঁর।

আজ বুধবার ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে ঘটে এ ঘটনা। লাল মিয়া ওই গ্রামের প্রবাসী আবদুল মান্নান বিশ্বাসের ছেলে।

লাল মিয়ার চাচা মোহাম্মদ সেলিম বলেন, মাঠে ধান রোপণের কাজ চলছে। এই ধান রোপণের সময় বীজতলা থেকে ধানের চারা উঠিয়ে জমিতে রোপণ করতে হয়। আজ বেলা দুইটার দিকে লাল মিয়া ধানের চারা ওঠানোর জন্য মাঠে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এ সময় চারা আঁটি বাঁধার জন্য বিচালির প্রয়োজন হয়। মাঠে যাওয়ার পথেই ছিল রাজ্জাক আলীর বিচালির পালা। লাল মিয়া সেখান থেকে এক মুঠো খড় নিতে যান। তখনই বিদ্যুতায়িত হয়ে গুরুতর আহত হন। সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে কালীগঞ্জ ও পরে যশোর ২৫০ শয্যার হাসপাতালে নিয়ে যান। বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।

লাল মিয়ার বাবা আবদুল মান্নান বিদেশে আছেন। তাঁরা দুই ভাই ও এক বোন। বড় ভাই পিয়াল হোসেন রাস্তার কাজের রোলারচালক আর লাল মিয়া কৃষিকাজ করতেন।

স্থানীয় লোকজন জানান, বর্তমানে ধানের খড়ের (বিচালি) বাজারমূল্য বেশি। তাই খড়ের পালা থেকে খড় চুরির ঘটনাও ঘটছে। এই চুরি ঠেকাতে রাজ্জাক আলী তাঁর খড়ের পালায় বিদ্যুতের তার জড়িয়ে রাখেন। যেখানে বিদ্যুতের সঞ্চালন ছিল। রাতে চুরি ঠেকাতে এই বিদ্যুতের লাইন দিয়ে রাখা হয়। কিন্তু ঘটনার সময় দিনেও সেই লাইনে বিদ্যুৎ ছিল। ঘটনার পর থেকে রাজ্জাক আলীর পরিবারের সবাই গা ঢাকা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, ঘটনাটি তিনি লোকমুখে শুনেছেন। দুর্গাপুর গ্রামের এক যুবক বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেছেন। তবে এখনো কেউ কোনো অভিযোগ নিয়ে আসেনি। এলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন