বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত নুরুল হক উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপে কোনাপাড়ার বাসিন্দা। নুরুল হকের বড় ছেলে স্কুলশিক্ষক শামসুল হক বলেন, সোমবার তাঁর বাবা মাগরিব নামাজ পড়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় ওই এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে মো. ইয়াসিনের নেতৃত্বে কয়েকজন পেছন থেকে তাঁকে ছুরিকাঘাত করেন। নুরুল হককে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

শামসুল হক আরও বলেন, ‘আমার বাবা নুরুল হক ও অভিযুক্ত ইয়াসিন দূর-সম্পর্কীয় নানা-নাতি। শিশুদের খেলাধুলা ও অসামাজিক কার্যকলাপে বাধা দেওয়ার জের ধরে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।’

অভিযোগের বিষয়ে ইয়াসিনের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মোহাম্মদ জোবায়ের বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই নুরুল হকের মৃত্যু হয়েছে। তাঁর বাম বাহুর নিচে ও বুকে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ লাশটি উদ্ধার করেছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) আবদুল আলিম বলেন, লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন