একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছয়টি আসনে বিএনপির ১৭ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। দলটির নেতা-কর্মীরা বলছেন, এই ১৭ জনের মধ্যে কারা প্রার্থী হচ্ছেন, তা অনেকটাই চূড়ান্ত। তবু সর্বশেষ কোন প্রার্থীরা চূড়ান্ত মনোনয়ন পান, তা নিয়ে এলাকায় জল্পনাকল্পনা চলছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামান; ২ আসনে বিএনপির সাবেক প্রতিমন্ত্রী আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় বিএনপির আন্তর্জাতিকবিষয়ক সহসম্পাদক রোমিন ফারহানা, আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু আসিফ আহমেদ, সরাইল উপজেলা বিএনপির সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক নেতা শেখ মোহাম্মদ শামীম, তরুণ দে ও এহসানুল হক শিপন; ৩ আসনে কেন্দ্রীয় বিএনপির অর্থনীতিবিষয়ক সম্পাদক খালেদ হোসেন মাহবুব ও আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক তৌফিকুল ইসলাম; ৪ আসনে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মুশফিকুর রহমান, আখাউড়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোসলেম উদ্দিন, জেলা বিএনপির সদস্য নাসির উদ্দিন হাজারী; ৫ আসনে সাবেক সাংসদ কাজী আনোয়ার হোসেনের ছেলে কাজী তাপস, কেন্দ্রীয় কৃষক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তকসির হোসেন মো. জসিম এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল খালেক ও কৃষিবিদ মেহেদী হাসান মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তাঁরা সবাই দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলা বিএনপির কয়েকজন নেতা বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনে একজনকেই মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। বাকি
আসনেও প্রার্থী প্রায় চূড়ান্ত। এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২-এ আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া, ৩ আসনে খালেদ হোসেন মাহবুব, ৪ আসনে মুশফিকুর রহমান বা মোসলেম উদ্দিন, ৫ আসনে কাজী তাপস ও ৬ আসনে আবদুল খালেক চূড়ান্ত প্রার্থী। বাকিরা ‘ডামি’ প্রার্থী।

জানতে চাইলে জেলা বিএনপির সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা বলেন, ‘আমাদের প্রার্থী চূড়ান্ত। তবে শেষ সময়ে ক্ষমতাসীন দল কী করে, তা বলা যায় না। তাই প্রতি আসনে বিএনপির একাধিক বিকল্প প্রার্থী রাখা হয়েছে। যেন কোনো আসনই হাতছাড়া না হয়।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন