বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম জানান, উপজেলার ৭ ইউনিয়নে ৪১ জন দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীর মধ্যে এবার ২৫ প্রবাসী রয়েছেন। এসব প্রবাসী দলের বিভিন্ন পদে থাকায় ইউনিয়ন পর্যায় থেকে তাঁদের নাম প্রস্তাব এসেছে।

উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের পাড়ারগাঁও গ্রামের বাসিন্দা যুক্তরাজ্যপ্রবাসী রফিক মিয়া বলেন, ‘প্রবাসী হলেও এলাকার মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে রয়েছি। তাই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিতে দেশে এসে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি।’

পাটলী ইউপির চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্যপ্রবাসী সিরাজুল হক বলেন, ‘প্রবাসে থাকা স্ত্রী-সন্তানদের সময় না দিয়ে ইউনিয়নের মানুষকে সময় দিচ্ছি। ১০ বছর ধরে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে তাদের পাশে আছি। আশা করছি অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে আবারও সুযোগ পাব।’ এ ইউনিয়নে যুক্তরাজ্যপ্রবাসী রিয়াদুল আলম, রাসেল আহমদ চৌধুরী, আবদুল হাই প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টায় আছেন।

প্রবাসীরা নির্বাচিত হয়ে প্রবাসে চলে গিয়ে সময়মতো দেশে ফিরতে পারেন না। এতে নাগরিকেরা সেবা পেতে বিড়ম্বনার শিকার হন। গত পাঁচ বছরে এ উপজেলার পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানকে সময়মতো প্রবাস থেকে ফিরতে না পারায় দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে।

চিলাউড়া হলদিপুর ইউপির চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, ‘জীবন-জীবিকার তাগিদে প্রবাসী হলেও জন্মভূমির প্রতি ভালোবাসা কমেনি। ৩০ বছর লন্ডনে থেকে দেশে এসে ১০ বছর ধরে জনগণের সেবা করছি। আশা করছি আবারও সেই সুযোগ জনগণ দেবে।’ এ ইউনিয়নে যুক্তরাজ্যপ্রবাসী সাবেক চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ, আবুল মোমেন, ইলিয়াছ আলী প্রার্থী হতে প্রচার-প্রচারণা, উঠান বৈঠক শুরু করছেন।

default-image

রানীগঞ্জ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্যপ্রবাসী মজলুল হক বলেন, ২০ বছর ধরে দেশে স্থায়ীভাবে আছেন। তিনি আবার নির্বাচন করতে চান।

সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউপিতে সাবেক চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্যপ্রবাসী আবুল হাসান, যুক্তরাজ্যপ্রবাসী মুকিত মিয়া, আজহার কামালী, মকসুদ মিয়া কোরেশী ও ছালেহ আহমদ ওরফে ছোট মিয়া, আসাদ হোসেন চৌধুরী মাঠে রয়েছেন।

আশারকান্দি ইউপির চেয়ারম্যান যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী শাহ আবু ঈমানী বলেন, ‘বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া সারা বছর দেশে থেকে মানুষের জন্য কাজ করি। প্রবাসে থাকতে এখন মন চায় না। তাই আবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’ এ ইউনিয়নে যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুস ছাত্তার, যুক্তরাজ্যপ্রবাসী জমিরুল হক, আবু বক্কর খান ও কাজল মিয়া মাঠে রয়েছেন।

পাইলগাঁও ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্যপ্রবাসী মখলিছ মিয়া নির্বাচনে অংশ না নিলেও এবার নতুন করে প্রার্থী হচ্ছেন যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ফারুক মিয়া ও মাহমুদুল হাসান কোরেশী। তাঁরা গণসংযোগ করছেন।

যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ফারুক মিয়া বলেন, ‘আমি প্রবাসী হলেও দেশে আমার ব্যবসা-বাণিজ্য রয়েছে। আমার বাবা ও বড় ভাই এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। তাই আমি এবার দেশে থাকার সংকল্প নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছি।’

জগন্নাথপুর উপজেলা নাগরিক ফোরামের যুগ্ম আহ্বায়ক রুমানুল হক বলেন, এ উপজেলায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রবাসীদের অংশগ্রহণ দীর্ঘদিনের রীতি। উপজেলার আট ইউনিয়নের মধ্যে সাতটিতে প্রবাসী চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রবাসীরা যেহেতু আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখেন, তাই তাঁদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ ভোটাররা ইতিবাচক হিসেবে দেখেন। তাই এবারও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক প্রবাসী মাঠে রয়েছেন।

তবে ভিন্ন কথাও বলছেন অনেকে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার এক ইউপির সচিব জানান, প্রবাসীরা নির্বাচিত হয়ে প্রবাসে চলে গিয়ে সময়মতো দেশে ফিরতে পারেন না। এতে নাগরিকেরা সেবা পেতে বিড়ম্বনার শিকার হন। গত পাঁচ বছরে এ উপজেলার পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানকে সময়মতো প্রবাস থেকে ফিরতে না পারায় দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে। পরে আইনি লড়াই চালিয়ে দায়িত্ব ফিরে পান তাঁরা।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘জগন্নাথপুর উপজেলার সাত ইউনিয়নে নির্বাচনের জন্য আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। প্রার্থিতার জন্য আমরা বিধিবিধান অনুসরণ করি। প্রবাসীদের নির্বাচনী বিধিবিধান মেনেই প্রার্থী হতে হবে।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন