বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
কৌশলে দরপত্র ছাড়া কেনাকাটা করার অভিযোগ। হিসাবরক্ষককে শাস্তি। তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের (ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ-আইপিএইচ) কর্মকর্তারা বলছেন, এই অনিয়মে শুধু মাহবুবুর রহমান নন, আইপিএইচের বিভিন্ন বিভাগের দায়িত্বশীল অন্তত ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত। তাঁরা বছরের পর বছর ধরে দরপত্রে কারসাজি, দরপত্র ছাড়া কেনাকাটা ও ভুয়া বিল-ভাউচারের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করে আসছেন।

আইপিএইচের পরিচালক রাশেদা সুলতানা প্রথম আলোকে বলেন, তিনি শুনেছেন মাহবুব নতুন কর্মস্থলে যাচ্ছেন না। তাঁর বিষয়ে এখন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিদ্ধান্ত নেবে। তিনি বলেন, মাহবুবের দুর্নীতির দায় আইপিএইচ কর্তৃপক্ষ কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।

default-image

কেনাকাটায় অনিয়মের তদন্তে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কমিটি করেছিল আইপিএইচের কর্মচারীদের পক্ষ থেকে করা এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে কর্মচারীরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান বরাবর অনিয়ম-দুর্নীতির তদন্ত চেয়ে আবেদন করেন। এতে বলা হয়, মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে একটি চক্র ২০১৬-১৭ থেকে ২০১৮-১৯ পর্যন্ত ৩ অর্থবছরে আইপিএইচ ও এর বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন প্রকল্পের নামে বরাদ্দ করা ২০০ কোটি টাকার কেনাকাটায় কোনো দরপত্র আহ্বান করেনি। চক্রটি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে খাবার স্যালাইন উৎপাদন ও বিতরণে প্রতিষ্ঠানের নামে বরাদ্দ হওয়া ৬৮ কোটি টাকা টাকার কেনাকাটাও দরপত্র ছাড়া করেছে।

কোটেশন পদ্ধতিতে ছোট অঙ্কের কেনাকাটায় নির্ধারিত ঠিকাদারকে কাজ দেওয়া বোঝায়। বিধি অনুযায়ী, রাজস্ব খাতে এক দফায় সর্বোচ্চ তিন লাখ ও উন্নয়ন খাতে এক দফায় সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকার কেনাকাটা কোটেশনের মাধ্যমে করা যায়। অভিযোগ উঠেছে, আইপিএইচের চক্রটি বড় অঙ্কের কেনাকাটা কৌশলে ভাগে ভাগে করেছে, যাতে দরপত্র ডাকতে না হয়।

আইপিএইচের একাধিক সূত্র জানায়, সংস্থাটির হিসাবরক্ষক (রি-এজেন্ট শাখা), বিক্রয় ও সংগ্রহ কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মাহবুবুর রহমান ১৯৯২ সাল থেকে দীর্ঘ ২৯ বছর এই প্রতিষ্ঠানে হিসাবরক্ষক পদে আছেন। অন্যদের বদলি হলেও মাহবুব সেখানেই থাকছিলেন।

মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কমিটি গঠন করে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে। গত ৪ আগস্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আইপিএইচকে দেওয়া এক চিঠিতে জানায়, মাহবুবের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অসদাচরণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। অবশ্য এর আগের দিনই মাহবুবকে বদলি করা হয়। বদলির আদেশে বলা হয়, তিন কর্মদিবসের মধ্যে ছাড়পত্র না নিলে তিনি সরাসরি অব্যাহতি পেয়েছেন বলে গণ্য হবে।

মাহবুবুর রহমান প্রথম আলোর কাছে দেওয়া বক্তব্যে দাবি করেন, তাঁর বিরুদ্ধে তদন্তে আইপিএইচের আরেক কর্মকর্তা প্রভাব বিস্তার করেছেন। তিনি (মাহবুব) আরও বলেন, দুর্নীতি হয়ে থাকলে এর সঙ্গে তিনি একা জড়িত নন। তিনি দাবি করেন, অসুস্থতার ছুটির কারণে নতুন কর্মস্থলে যোগ দিচ্ছেন না।

এদিকে দুদকও মাহবুবুর রহমানসহ অনিয়মে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে। সংস্থাটির উপপরিচালক (জনসংযোগ) মোহাম্মদ আরিফ সাদিক প্রথম আলোকে বলেন, মাহবুবের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চলমান।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন