default-image

বেওয়ারিশ লাশের পরিচয় শনাক্ত, নিখোঁজ ব্যক্তির সন্ধান পেতে ও দ্রুত অপরাধী শনাক্তকরণে জাতীয় পরিচয়পত্রের মতো জন্মনিবন্ধনে আঙুলের ছাপ ও আই কন্ট্যাক্ট নেওয়া বাধ্যতামূলক করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ওই রুল দেন। জন্ম ও মৃত্যুনিবন্ধনের রেজিস্ট্রার জেনারেল, স্থানীয় সরকারসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব (জননিরাপত্তা), পুলিশ মহাপরিদর্শকসহ বিবাদীদের চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

জাতীয় পরিচয়পত্রের মতো জন্মনিবন্ধনের সময় শিশু-কিশোরসহ নাগরিকদের ফিঙ্গার প্রিন্ট ও আই কন্ট্যাক্ট বাধ্যতামূলক করতে নির্দেশনা চেয়ে মানবাধিকার সংগঠন সারা সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক মু. আরিফুর রহমান মুরাদ ভূঁইয়া ওই রিট করেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে তিনি নিজেই শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

পরে রিটকারী আরিফুর রহমান মুরাদ ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের মতো জন্মনিবন্ধনে দেশের প্রত্যেক নাগরিকের ফিঙ্গার প্রিন্ট এবং আই কন্ট্যাক্ট বাধ্যতামূলক করতে নির্দেশনা চেয়ে গত বছরের ১২ মার্চ ওই রিটটি করা হয়। কেউ যদি দুর্ঘটনায় পড়েন, তখন দুই ধরনের লোক উপস্থিত হন। কেউ আসেন সাহায্য করতে আবার কেউ আসেন দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তির মানিব্যাগ ও মুঠোফোন চুরি করতে। লোকটি মারা গেলে তাঁর পরিচয় জানা যায় না। নিখোঁজ শিশু ও কিশোরদের পাচারকারীর হাত থেকে উদ্ধারের জন্যও আঙুলের ছাপ ও আই কন্ট্যাক্ট একান্ত প্রয়োজন। এসব দিক তুলে ধরে রিটটি করা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন