default-image

প্রতিবছর কক্সবাজারের মহেশখালীর আদিনাথ মন্দিরের শিব চতুর্দশী মেলায় লাখো তীর্থযাত্রীর সমাগম ঘটলেও এবার অবরোধ ও হরতালের প্রভাবে এখনো ফাঁকা মেলা প্রাঙ্গণ। ১৭ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া ১০ দিনব্যাপী এই মেলায় নানা পণ্যসামগ্রী বিক্রির জন্য নিয়ে আসেন ব্যবসায়ীরা। মেলা না জমায় হতাশ তাঁরাও।
মেলার আয়োজকেরা জানান, প্রতিবছর দেশের তীর্থযাত্রীদের পাশাপাশি আদিনাথ মন্দিরের শিব দর্শন করার জন্য ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও মিয়ানমার থেকেও পর্যটকেরা আসেন। এবার কক্সবাজার জেলার আশপাশে এলাকার তীর্থযাত্রীরা মেলায় এলেও দেশের অন্যান্য এলাকার লোকজন আসতে পারেননি। পাশাপাশি অন্যান্য বছর মেলায় বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান হলেও এবার তেমন কিছু করার অনুমতি দেয়নি পুলিশ প্রশাসন।
গত বৃহস্পতিবার দুপুরে গিয়ে দেখা গেছে, আদিনাথ মন্দিরে শিব দর্শন করার জন্য শতাধিক তীর্থযাত্রী লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন। তবে মেলাকে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের পণ্য নিয়ে বসা ছোট-বড় দুই শতাধিক স্টলে ক্রেতাদের ভিড় নেই।
চট্টগ্রামের চন্দনাইশ থেকে আসা তীর্থযাত্রী মণীন্দ্র লাল দে বলেন, ‘প্রতিবছর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আদিনাথ মন্দিরে শিব দর্শন করতে আসতাম। কিন্তু বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে এবার পরিবারের সদস্যদের আনা সম্ভব হয়নি।’
ফরিদপুর থেকে আসা ব্যবসায়ী গোপাল দে বলেন, গত বছরও মেলায় খুব ভালো বেচাকেনাও হয়েছে। কিন্তু দেশের পরিস্থিতি এখন ভালো না হওয়ায় এবারের মেলায় তীর্থযাত্রী তেমন আসেননি। এ কারণে বেচাকেনাও নেই বললে চলে।
স্পিডবোট মালিক জসিম উদ্দিন বলেন, ‘গত বছর মেলার সময় একেকটি স্পিডবোট থেকে ১০ হাজার টাকা আয় হয়েছে। কিন্তু এবারের মেলায় তীর্থযাত্রীর সমাগম না হওয়ায় এখনো এক হাজার টাকাও আয় করতে পারিনি।’
আদিনাথ পূজা ও মেলা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি পূর্ণচন্দ্র দে বলেন, অন্যান্য বছর মেলায় আসা তীর্থযাত্রীরা মন্দিরে অনেক টাকা দান করেন। অন্তত চার লাখ টাকা আয় হয় এ থেকে। তবে এবার দর্শনার্থী না আসায় মেলা আয়োজনের টাকাও উঠে আসবে কি না, সন্দেহ রয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন