default-image

জলবায়ু-সহিষ্ণু বিভিন্ন জাতের শস্যের উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কৃষি গবেষণা, শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও সম্প্রসারণ আরও সংহত ও আধুনিক করে তুলতে কৃষিবিদদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
আজ বুধবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি তাঁর ভাষণে বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনজনিত পরিস্থিতি মোকাবিলার পাশাপাশি দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীর খাদ্য চাহিদা পূরণ আমাদের কৃষিবিদদের জন্য একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ। এ কারণে আমাদের কৃষিবিষয়ক শিক্ষা আরও আধুনিক এবং জলবায়ু-সহিষ্ণু বিভিন্ন জাতের শস্যে উন্নয়ন প্রয়োজন।’
কৃষি খাতে অসামান্য অবদান রাখার জন্য প্রথমবার চার ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠান এ পদক পেয়েছে। চার ব্যক্তি হলেন মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ, শাহাদাত হোসেন সিদ্দিকী, আসাদুল হক বিশ্বাস ও মো. শহিদুর রশিদ ভূঁইয়া এবং প্রতিষ্ঠান হিসাবে বাংলাদেশ রাইস রিসার্চ ইনস্টিটিউট পদক পেয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, কৃষিভিত্তিক আইসিটি জ্ঞানে কৃষকদের অবশ্যই সমৃদ্ধ হতে হবে, যাতে তারা পরিবর্তনশীল পরিস্থিতিতে ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে এবং শস্য উৎপাদন বিষয় জ্ঞান আহরণে আইসিটি ব্যবহার করতে পারে।
শস্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য রাষ্ট্রপতি কৃষিবিদ, কৃষিবিজ্ঞানী, সম্প্রসারণকর্মীসহ সবার প্রতি আহ্বান জানান।
কৃষি খাতের উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গৃহীত উদ্যোগের কথা স্মরণ করে আবদুল হামিদ বলেন, কৃষি উন্নয়নের জন্য মেধাবী গ্র্যাজুয়েটদের আকর্ষণে বঙ্গবন্ধু ১৯৭৩ সালে কৃষিবিদদের প্রথম শ্রে​ণির মর্যাদা দিয়েছেন।
বর্তমান সরকার কৃষির প্রতি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছে এবং এ খাতের উন্নয়নে ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এর ফলে দেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বাবলম্বী হয়েছে।
কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের (কেআইবি) সভাপতি এ এফ এম বাহাউদ্দিন নাছিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, অর্থমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবদুর রাজ্জাক, সাংসদ আবদুল মান্নান এবং কেআইবি মহাসচিব মোহাম্মদ মোবারক আলী প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন