জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র জুবায়ের আহমেদ হত্যা মামলায় পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। ছয়জনকে দেওয়া হয়েছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। আর খালাস পেয়েছেন দুজন।

আজ রোববার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪-এর বিচারক এ বি এম নিজামুল হক এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া পাঁচ আসামি হলেন খন্দকার আশিকুল ইসলাম, রাশেদুল ইসলাম, জাহিদ হাসান, মাহবুব আকরাম ও খান মোহাম্মদ রইস। তাঁরা সবাই পলাতক।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া ছয় আসামি হলেন ইশতিয়াক মেহবুব, মাজহারুল ইসলাম, শফিউল আলম, নাজমুস সাকিব, কামরুজ্জামান সোহাগ ও অভিনন্দন কুণ্ডু। এঁদের মধ্যে প্রথমজন পলাতক। বাকিরা কারাগারে আছেন। খালাস পেয়েছেন মাহমুদুল হাসান ও মো. নাজমুল হুসেইন। তাঁরাও কারাগারে আছেন। আসামিদের সবাই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগের কর্মী।

গত ২৮ জানুয়ারি যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন শেষে ৪ ফেব্রুয়ারি এই মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেছিলেন আদালত। একই দিন আদালত এই মামলায় জামিনে থাকা সাত আসামির জামিন বাতিল করে তাঁদের কারাগারে পাঠান। কারাগারে থাকা সাত আসামিকে নিরাপত্তার কারণে ৪ ফেব্রুয়ারি হাজির না করায় মামলার রায় ঘোষণার তারিখ পিছিয়ে আজ ৮ ফেব্রুয়ারি ধার্য করেন আদালত।

২০১২ সালের ৮ জানুয়ারি বিকেলে জুবায়ের আহমেদকে প্রতিপক্ষ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা কুপিয়ে জখম করেন। পরদিন ভোরে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ঘটনার পরদিন আশুলিয়া থানায় মামলা করে। তদন্ত শেষে পুলিশ ১৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0